করোনা

করোনা সংক্রমণ কমবে অস্ট্রেলিয়ায়!

ব্রিট বাংলা ডেস্ক : করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের বেশিরভাগ দেশেই। গত ২৪ ঘন্টায় অস্ট্রেলিয়ায়ও করোনায় সংক্রমণের সংখ্যা বেড়ে গেছে। তবে এর হার সামনের দিনগুলোতে কমতে শুরু করবে। এমনটাই মন্তব্য করেছেন ডেপুটি চিফ মেডিকেল অফিসার পল কেলি।

বৃহস্পতিবার তিনি বলেছেন, অস্ট্রেলিয়ার করোনাভাইরাস সংক্রমণের হারের বক্ররেখা বা ‘কার্ভ’ পর্যবেক্ষণ করছি আমরা। সে থেকে দেখা গেছে যে, অস্ট্রেলিয়ায় করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার কমতে শুরু করবে।

পল কেলি বলেন, এই মুহুর্তে অবাক হওয়ার কিছু নেই। আমাদের প্রায় সকল সংক্রমণ বিদেশ থেকে এসেছে। অন্য দেশগুলোর মতো একইরকম বক্ররেখা অনুসরণ করছি।

তিনি বলেন, এখন যে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন রয়েছে, তার মানে ঘরেই থাকুন … এটি ভাইরাসের বিস্তার কমিয়ে দেবে। এবং গত সপ্তাহগুলোতে আমরা যেসব ব্যবস্থা নিয়েছি তার ফলে সংক্রমণ কমতে শুরু করবে। আমি নিশ্চিত যে এটি ঘটবে।

তবে তিনি জানাননি কবে থেকে এ সংক্রমণ কমতে শুরু করবে।

এদিকে অধ্যাপক কেলি যখন বক্তব্য দিচ্ছিলেন অস্ট্রেলিয়ায় করোনায় সংক্রমণের সংখ্যা ৬০০ ছাড়িয়ে গেছে।

সরকারী তথ্যে দেখা গেছে যে, দেশটিতে ২৪ ঘন্টার মধ্যে ১১০ জনেরও বেশি লোক আক্রান্ত হয়েছেন। এটা একদিনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্তের ঘটনা। বৃহস্পতিবার নিউ সাউথ ওয়েলস (এনএসডব্লিউ) এবং অন্য কয়েকটি প্রদেশের কর্তৃপক্ষ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

অধ্যাপক কেলি বলেন, আক্রান্তের সংখ্যা] দ্রুত বেড়ে যাচ্ছে। তবে এটি এখনও বেশিরভাগ আন্তর্জাতিক (বিদেশ) ভ্রমণের কারণেই হচ্ছে। তবে তা খুব দ্রুত হ্রাস পেতে শুরু করেছে।

তিনি বলেন, আমাদের ক্ষেত্রে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে আশ্চর্যের কিছু নেই। এখনও পর্যন্ত ৫৬৫ জনের মধ্যে স্থানীয়ভাবে মাত্র ১০০ জন আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছি আমরা। সুতরাং এখন পর্যন্ত বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বিদেশফেরতদের মধ্যেই আক্রান্তের সংখ্যা বেশি।

এদিকে, সরকারী তথ্য বলছে, আক্রান্তদের মধ্যে ২৬৯ জন বা ৪৫ শতাংশ বিদেশফেরত অস্ট্রেলীয়। একশজন আক্রান্ত হয়েছেন ওই বিদেশীদের সংস্পর্শে এসে। তারা পরিচিত বা অজানা উত্সের মাধ্যমে আক্রান্ত হয়েছেন। করোনায় আক্রান্ত বাকি ২০৬ জনের বিষয়ে এখনও তদন্ত করা হচ্ছে।

এদিকে, অস্ট্রেলিয়ায় মাত্র দুই সপ্তাহের মধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দশগুণ বেশি বেড়েছে। ৫ মার্চ পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল মাত্র ৫২ জন।

Related Articles

Back to top button