আন্তর্জাতিক

হয় সামনে থেকে নেতৃত্ব দিন, নইলে সরে দাঁড়ান : ট্রাম্পকে ক্ষুব্ধ গভর্নররা

ব্রিট বাংলা ডেস্ক :: ‍ভয়াবহ হয়ে উঠছে যুক্তরাষ্ট্রের করোনা পরিস্থিতি। এরই মধ্যে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর দেশটির ৫০ রাজ্যে ৪৬ হাজার ১৬৮ জনের মাঝে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত করা হয়েছে। মারা গেছেন ৫৮২ জন। বন্ধ রাখা হয়েছে ব্যবসা-বাণিজ্যের বহু কেন্দ্র। যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ লকডাউন রয়েছে।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে পরিস্থিতি মোকাবেলায় ব্যর্থতার অভিযোগ এনে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে দেশটির অঙ্গরাজ্য এবং স্থানীয় প্রশাসনের নেতৃত্বরা। করোনা সংকটে ট্রাম্প প্রশাসনের বক্তব্যে হতাশ হয়ে পড়েছেন অনেক মার্কিন কর্মকর্তা।

যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ঘটেছে নিউইয়র্কে। সেখানকার গভর্নর অ্যান্ড্রু কুওমো জানান, নিউইয়র্কে ২০ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

রবিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘আমাদের এই মুহূর্তে চিকিৎসা সামগ্রী প্রয়োজন। পুরো অঙ্গরাজ্য জুড়ে হাসপাতালগুলোতে হাহাকার পড়ে গেছে। দেশজুড়ে অন্যান্য গভর্নরদের সঙ্গে আমি কথা বলেছি, তারা একই পরিস্থিতিতে আছেন।’

কুওমো জানান, এখন একটি সিদ্ধান্ত জীবন ও মৃত্যু মধ্যে পার্থক্য করে দেবে।

ইলিনয়িসের গভর্নর জে বি প্রিজকার টুইটে বলেন, ‘আপনি (ট্রাম্প) এই মুহূর্তে মূল্যবান দিনগুলো নষ্ট করছেন। এখনও আমেরিকান এবং ইলিনয়িসবসীদের সুরক্ষার ব্যবস্থা করতে পারেননি।’

তিনি বলেন, ‘রোগী পরীক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগুলো কোথায়? স্বাস্থ্যকর্মীদের নিরাপত্তামূলক পোশাক কোথায়? পেছনের আসনের বসে বদমেজাজ না দেখিয়ে জাতীয় সংকটে আপনার নেতৃত্ব দেয়া উচিত।’

প্রিজকার বলেন, ‘সময়টি দায়িত্বশীল মানুষদের জন্য, এ নয় যে সার্কাসের লোকের মতো আপনি সস্তা আসনে বসে টুইট করে যাবেন। হয় আপনি কাজ করুন নয়তো রাস্তা থেকে সরে দাঁড়ান।’

এদিকে বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৬ হাজার ৭১৩ জনে দাঁড়িয়েছে। এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৮৬ হাজার ৩০২ জন। যার মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছে এক লাখ ২ হাজার ৫৩৬ জন।

Related Articles

Back to top button