যুক্তরাজ্য

ব্রিটেনে দ্বিতীয় দফায় করোনা ঝুঁকি : প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান

ব্রিটবাংলা ডেস্ক : ব্রিটেনে দ্বিতীয় দফায় করোনা ভাইরাস ব্যাপকভাবে সংক্রমনের আশঙ্কার কথা জানিয়ে যথাযথভাবে প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।  ৪ জুলাই থেকে ইংল্যান্ডের বড় ধরনের লকডাউন শিথিলের ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। প্রধানমন্ত্রী মঙ্গলবার এই ঘোষণা দেওয়ার একদিন পর বুধবার ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত এক চিঠিতে এই আহ্বান জানানো হয়। চিঠিতে দ্যা রয়েল কলেজ অব সার্জনের প্রেসিডেন্ট, ব্রিটিশ মেডিকেল এসোসিয়েসনের চেয়ার, নার্সিং, ফিজিশিয়ান এবং জিপিদের সংগঠনের প্রেসিডেন্ট স্বাক্ষর করেছেন।

চিঠিতে বলা হয়েছে, করোনা ভবিষ্যতে কি রূপ নেয়, তা বোঝা বা অনুমান করা যেখানে কঠিন এবং ইউকের কিছু কিছু এলাকায় এখনো করোনা সংক্রমিত হচ্ছে বলে প্রমাণও রয়েছে এই অবস্থায় কোনওভাবেই দ্বিতীয় দফায় ব্যাপকভাবে এর সংক্রমনের ঝুঁকি এড়ানো যাবে না।

এই চিঠিতে ব্রিটিশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের চেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন, পার্লামেন্টে সর্বদলীয় একটি কমিটি করে, ব্লেম গেইম এব বিতর্কের উর্ধ্বে থেকে পরিস্থিতি যাচাই করে সিদ্ধান্ত এবং প্রস্তুতি নিতে। বিশেষ করে পিপিই’র বিষয়ে ভালো করে প্রস্তুত থাকতে আহ্বান জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য ৪ জুলাই থেকে ইংল্যান্ডে পাব, রেস্টুরেন্ট, চুলকাটার দোকান, সিনেমাসহ প্রায় সব কিছুই পুনরায় খুলে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। একই সঙ্গে সামাজিক দুরত্ব ২ মিটার থেকে নামিয়ে ১ মিটার করার ঘোষণা দেন তিনি। এছাড়াও টেন ডাউনিং স্ট্রিটের নিয়মিত করোনা ব্রিফিংয়ের সমাপ্তি টানা হয় মঙ্গলবার।

যদিও মঙ্গলবার টেন ডাউনিং স্ট্রীটের ব্রিফিংয়ে সরকারের চীফ সাইন্টিফিক এডভাইসার স্যার পেট্রিক ভ্যালান্স এবং ইংল্যান্ডের চীফ মেডিকেল অফিসার প্রফেসার ক্রিট উইটি উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর তারা দুজনেই বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর লকডাউন শিথিলের পরিকল্পনা ঝুঁকি মুক্ত নয়।

এদিকে স্কটল্যান্ড, নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড এবং ওয়েলসে সামাজিক দুরত্ব ২ মিটার বহাল থাকবে এবং ইংল্যান্ডের মতো ৪ জুলাই থেকে বড় ধরনের লকডাউন শিথিল হচ্ছে না।

উল্লেখ্য ব্রিটেনে মঙ্গলবার পর্যন্ত করোনায় ৪২ হাজার ৯শ ২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।

Related Articles

Back to top button