যুক্তরাজ্য

টাওয়ার হ্যামলেটসে প্লানিং পারমিশনে অনুমোদন বিতর্ক : বেড়িয়ে আসছে থলের বেড়াল

ব্রিটবাংলা ডেস্ক : টাওয়ার হ্যামলেটসের ডকল্যান্ড এলাকার ওয়েস্টফেরীতে কনজারভেটিভ পার্টির শুভাকাঙ্খি এবং চাঁদা দাতা রিচার্ড ডেসমন্ডকে প্লানিং পারমিশন পাইয়ে দিতে হাউসিং সেক্রেটারী রবার্ট জেনেরিখের স্বজন প্রীতি এবং পক্ষপাতিত্বের প্রমান বের হয়েছে।

বিষয়টি পার্লামেন্টে উত্থাপন করে রিচার্ড ডেসমন্ড এবং হাউসিং সেক্রেটারীর মধ্যে এ বিষয়ে যোগাযোগের সমস্ত তথ্য প্রকাশের দাবী জানায় লেবার পার্টি। এ নিয়ে গত দুদিন পার্লামেন্টে বিতর্কের পর বেড়িয়েছে থলের বিড়াল। এমপিদের চাপে প্লানিং পারমিশন অনুমোদনের বিষয়ে হাউসিং সেক্রেটারী এবং রিচার্ড ডেসমন্ডের মধ্যে মোবাইলে ট্যাক্সট ম্যাসেজ এবং ইমেইল আদান প্রদানের তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

যদিও পার্লামেন্টে আত্মপক্ষ সমর্থন করে রাখা বক্তব্যে হাউসিং সেক্রেটারী বলেছেন, এই অনুমোদন দেবার জন্যে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল আট মাস সময় নিয়েও ব্যর্থ হয়েছে। টাওয়ার হ্যামলেটসকে দুর্নীতিগ্রস্ত বারা উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, হাউসিং সমস্যা সমাধানের লক্ষেই তিনি এতে হস্থক্ষেপ করেছেন।

বারাকে দুর্নীতিগ্রস্ত বারা বলায়, এর তীব্র প্রতিবাদ করেছেন বেথনাল গ্রীন এন্ড বো’র এমপি রুশানারা আলী এবং টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহ মেয়র জন বিগস।

এমপি রুশানারা আলী পার্লামেন্টে বলেছেন, টাওয়ার হ্যামলেটস নয়, দুর্নীতিগ্রস্ত হাউসিং সেক্রেটারীর ডিপার্টমেন্ট। সেটাই আগে হাউসিং সেক্রেটারীর পরিস্কার করা উচিত।

টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের প্লানিং পারমিশন অফিসার এবং কাউন্সিলকে উপেক্ষা করে ১৫০০ ফ্লাট নির্মাণের জন্যে ডেইলি এক্সপ্রেসের সাবেক মালিক রিচার্ড ডেসমন্ডকে প্লানিং পারমিশনে অনুমোদন নেবার জন্য গত বছরের ১৮ নভেম্বর কনজারভেটিভ পার্টির একটি ফান্ড রেইজিং পার্টিতে বরিস জনসনের আজ্ঞাবহ হাউসিং সেক্রেটারী রবার্ট জেনেরিখের সঙ্গে এক টেবিলে বসেন। এরপর আদান-প্রদান হয় ট্যাক্সট ম্যাসেজ। এরপর চলতি বছরের ১৪ জানুয়ারী প্লানিং পারমিশনে অনুমোদন দেন হাউসিং সেক্রেটারী। এর দু সপ্তাহ পর কনজারভেটিভ পার্টির তহবিলে ব্যক্তিগতভাবে ১২ হাজার পাউন্ড দান করেন তিনি। এর ফলে ডেসমন্ড ৩০ থেকে ৬০ মিলিয়ন পাউন্ড সাশ্রয় করেন সক্ষম হন। আর কাউন্সিল বনচি্ত হয় বিশাল অংকের রাজস্ব আয় থেকে। এই অর্থ কাউন্সিল বারার হাউজিংসহ অন্য যে কোনখাতে ব্যয় করতে পারত। উল্লেখ্য বাঙালি অধ্যুষিত এই বারায় এখনো প্রায় ২৩ হাজারের বেশি পরিবার হোমলেস রয়েছে।

এই ইস্যুতে ব্রিটবাংলায় পূর্বে প্রকাশিত সংবাদ পড়তে হলে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করুন 

http://britbangla24.com/news/107502/

টোরি বিলিয়নারের মিলিয়ন পাউন্ড সাশ্রয়ের উদ্দেশ্যেই টাওয়ার হ্যামলেটসে প্লানিং পারমিশনে হস্থক্ষেপ : পার্লামেন্টে হাউসিং সেক্রেটারীর স্বীকারোক্তি

বিশাল আকারের এই প্লানিং পারমিশনে অনুমোদন দেওয়ার আগে কাউন্সিলের পক্ষ থেকে বিল্ডিং নির্মাণের উপর স্থানীয়ভাবে একটি আইন প্রনয়নের চেস্টা করা হয়েছিল। যার মাধ্যমে কাউন্সিল এই খাত থেকে বাড়তি রাজস্ব আদায়ের সুযোগ পেত। কিন্তু প্রস্তাবিত এই আইনটি কেবিনেটে পাশ হওয়ার আগের দিন কাউন্সিলকে উপেক্ষা করে ধনকুবের রিচার্ড ডেসমন্ড এবং নর্দার্ন শেলের যৌথ মালিকানাধীন প্লানিং পারমিশনে অনুমোদন দেন হাউসিং সেক্রেটারী। এর একদিন পরে তাতে অনুমোদন দিলে কাউন্সিল ৩০ থেকে ৫০ মিলিয়ন পাউন্ড রাজস্ব পেত শুধু এই প্রজেক্ট থেকেই।

কাউন্সিলের পক্ষ থেকে বিষয়টি হাইকোর্টে চ্যালেন্জ করার পর, হাইকোর্ট হাউসিং সেক্রেটারীর এই প্লানিং পারমিশনকে বেআইনী বলে রায় দেন। যদিও প্রথম থেকে বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেস্টা করেন হাউসিং সেক্রেটারী। লেবার পার্টির পক্ষ থেকে একে হাউসিং সেক্রেটারীর ‘অর্থের বিনিময়ে’ স্বজনপ্রীতি বলে আখ্যা দিয়ে আসছে।

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button