সিলেট

ফেঞ্চুগঞ্জে নারী খুন : তিন আসামির স্বীকারোক্তি

সিলেট অফিস :: বসতঘর থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে খোলা ল্যাট্রিনের রিংয়ে পা উপুড় করা অবস্থায় পাওয়া যায় এক নারীর লাশ। উদ্ধার করা লাশের গা থেকে কোনো রক্ত ঝরেনি। তাহলে ল্যাট্রিনের পাশে রক্তের ছোপ ছোপ কার? এটি খুঁজতে গিয়ে রক্তের দাগ দেখে দেখে খুনির গন্তব্য শনাক্ত করে পুলিশ। গ্রেফতার করা হয় কাচ দিয়ে সদ্য পা কাটা একজন যুবক ও তাঁর দু’জন সঙ্গীকে।

গত বুধবার (১২ আগস্ট) রাতে সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার মাইজগাঁওয়ের মোল্লাটিলা এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। নিহত ওই নারীর নাম জুলেখা বেগম (৪৫)।

শুক্রবার গ্রেফতারকৃত তিনজন সিলেটের আদালতে ফৌজধারী আইনের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে। বিচারক তাদের জবানবন্দি রেকর্ড করে আসামীদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন সিলেট জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গণমাধ্যম) মো. লুৎফর রহমান। তিনি বলেন, জুলেখা তাঁর দুই ছেলের রোজগার থেকে কিছু টাকা জমিয়ে রাখতেন। এই টাকা দিয়ে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা কিনে দেবেন বলে জানিয়েছিলেন। ওই টাকা জমানোর বিষয়টি কালু তাঁর এক বন্ধুর মাধ্যমে জানতে পেরেছিলেন। গত বুধবার সন্ধ্যার পর সেই টাকা চুরি করতে জুলেখার ঘরে ঢোকে তিনজন। এ সময় জুলেখা বাধা দিলে তাঁকে গলায় গামছা পেঁচিয়ে হত্যা করে লাশ ল্যাট্রিনে ফেলে দেয় তারা। লাশ ফেলার সময় কালুর বাঁ পায়ে কাচের টুকরায় কেটে যায়। কাটা পা থেকে রক্ত ঝরছিলো, যা দেখে পুলিশ খুনি শনাক্ত করেছে।

ফেঞ্চুগঞ্জ থানার ওসি আবুল বাশার মোহাম্মদ বদরুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, জুলেখার গলায় গামছা পেছানোর চিহ্ন ছিলো। এতে ধারণা করা হয়, তাঁকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। তবে শরীরে কোনো জখমের চিহ্ন ছিলো না। ‘ক্লুলেস’ হত্যাকাণ্ডটি শেষ পর্যন্ত রক্তের দাগ দেখে উদঘাটন করা হয়েছে। এ ঘটনায় তিনজনকে আসামি করে মামলা করেছেন জুলেখার বড় ছেলে মো. রুমান আহমদ (২১)।

ওসি আরো জানান, জুলেখার জমানো ৮ হাজার ৮৬৮ টাকা এই তিনজনের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, স্বামীর সঙ্গে জুলেখা বেগমের ছাড়াছাড়ি হওয়ার পর প্রায় চার মাস ধরে দুই ছেলেকে নিয়ে বসবাস করছিলেন মোল্লাটিলার একটি ভাড়া বাসায়। দুই ছেলে ওয়ার্কশপে কাজ করেন। প্রতিদিন সকালে কাজে যান, কাজ শেষে সন্ধ্যায় বাড়ি ফেরেন। ওই দিন সন্ধ্যায় ঘরে ফিরে মা জুলেখাকে পাননি দুই ছেলে। ঘর তছনছ থাকায় প্রতিবেশীদের নিয়ে মাকে খোঁজাখুঁজি করতে গিয়ে ঘর থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে একটি খোলা ল্যাট্রিনের মধ্যে মায়ের লাশ দেখে ফেঞ্চুগঞ্জ থানার পুলিশকে খবর দেন। রাত ১১টার দিকে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে।

Related Articles

Back to top button