কমিউনিটি

কাজ শুরু করেছে নবগঠিত টাওয়ার হ্যামলেটস রেস ইনইক্যূয়েলিটিজ কমিশন

বারায় জাতি বর্ণ বৈষম্য মোকাবেলায় নবগঠিত টাওয়ার হ্যামলেটস ব্ল্যাক, এশিয়ান এন্ড মাইনোরিটি ইনইক্যূয়েলিটিজ কমিশন তাদের আগামী দিনের কার্যক্রমকে সামনে রেখে গত সপ্তাহে প্রথমবারের মতো বৈঠকে মিলিত হয়।

গত জুন মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশের হাতে জর্জ ফ্লয়েড নামের এক কৃষ্ণাঙ্গ যুবকের নির্মম প্রাণহানির ঘটনায় বিশ্বব্যাপি বর্ণবাদবিরোধী প্রতিক্রিয়া এবং ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার্স আন্দোলনের প্রেক্ষিতে কমিউনিটির প্রতিক্রিয়ায় সাড়াদিতে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল এই কমিশন গঠন করে। এছাড়া কৃষ্ণাঙ্গ, এশিয় ও সংখ্যালঘু জাতি সত্বার লোকজনের ওপর কোভিড-১৯ এর নেতিবাচক প্রভাব সবচেয়ে বেশি পড়ার বিরুদ্ধে লড়াইয়েও এই কমিশন কাজকরছে।

মেয়র জন বিগস নবগঠিত এই কমিশনের প্রধান হিসেবে ডেপুটি মেয়র আসমা বেগমকে নিযুক্ত করেছেন। এই কমিশন স্বাস্থ্য, কর্মসংস্থান ও শিক্ষা এবং কমিউনিটি নেতৃত্বের বিভিন্ন ক্ষেত্রে কী ধরনের ব্যবহারিক পবির্তন ও উন্নতি করা দরকার, তা খতিয়ে দেখতে প্রয়োজনীয় তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহ করবে।

গঠনের সাথে সাথেই কমিশন তাদের কাজ শুরু করে এবং আগামী বছরের প্রথম দিকে সংগৃহিত উপাত্ত ও এ্যাকশনপ্ল্যান (কার্য পরিকল্পনা) ঘোষনা করার আগে তারা বিভিন্ন বিষয় ও ক্ষেত্রের ওপর পৃথক পৃথক অধিবেশন ও আলোচনা, পর্যালোচনা সভা করবে।

এ প্রসঙ্গে টাওয়ার হ্যামলেটসের মেয়র জন বিগস বলেন, ব্ল্যাক লাইভস্ ম্যাটার শীর্ষক বর্ণবাদ বিরোধী বৈশ্বিক আন্দোলন গোটা বিশ্বের নজর কেড়েছে, যা আমাদের সমাজে বিরাজমান গুরুতর বৈষম্য ও অন্যায্যতাকে স্বীকার করেনিতে সকল ধরনের প্রতিষ্ঠান ও তাদের নেতৃত্বকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছে। আমাদের এই কমিশনের সদস্যদের তাদের ভূমিকায় স্বাগত জানাতে পেরে আমি আনন্দিত এবং আমি এটা জানি যে, কমিশন সদস্যদের প্রত্যেকেই ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে তাদের বহু বছরের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতাকে পুরোমাত্রায় ব্যবহার করবেন। বারার সর্বত্র পৌঁছানোর এবং কমিউনিটির সত্যিকারের বক্তব্য ও অভিমতগুলো শোনার এটা একটা অনন্য সুযোগ, যা ইতিবাচক পরিবর্তন ও ভবিষ্যতের সিদ্ধান্ত নেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করবে।

মেয়র বলেন, বারার সকল ব্যাকগ্রাউন্ড অর্থাৎ ভিন্ন সংস্কৃতি-কৃষ্টির সর্বস্তরের মানুষ, সকল সংগঠন, সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের এই কমিশনের সাথে জড়িত হওয়া, তাদের জীবনের অভিজ্ঞতাগুলোকে শেয়ার করা এবং কিভাবে সত্যিকার ও টেকসই পার্থক্য নিশ্চিত করা যায়, সে সম্পর্কে নিজেদের দুর্দান্ত ধারনাগুলো তুলে ধরাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

কমিশনের চেয়ার, ডেপুটি মেয়র এবং কেবিনেট মেম্বার ফর কমিউনিটি সেফটি, ইয়ূথ এন্ড ইক্যূয়েলিটিজ, কাউন্সিলর আসমা বেগম বলেন, ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার আন্দোলন এবং কোভিড-১৯ মহামারী সম্পর্কিত সাম্প্রতিক মাসগুলোর ঐতিহাসিক ঘটনাপ্রবাহ কৃষ্ণাঙ্গ, এশিয়ান ও সংখ্যালঘু নৃগোষ্টির লোকদের ওপর অসামঞ্জস্যপূর্ণ নেতিবাচক প্রভাবফেলার দিকগুলোকে সামনে নিয়ে এসেছে। সারা দেশ অধিকতর অর্থনৈতিক মন্দার দিকে এগিয়ে যাওয়ার প্রেক্ষিতে অনেকের ওপর নেতিবাচক প্রভাবগুলো আরো গুরুতর আকার ধারন করতে পারে।

কাউন্সিলর আসমা বলেন, গ্রীষ্মকালে কমিউনিটির সাথে বিস্তর আলোচনা ও অভিমত বিনিময়ের পর প্রথমবারের মতো আমাদের কমিশনারদের একত্রিত করতে পেরে আমাদের খুব ভালো লাগছে। আমরা স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে তাদের অভিজ্ঞতা ও অভিমত শুনতে এবং সামনের দিনের কাজগুলোতে গভীরভাবে মনোনিবেশ করতে আমরা সবাই অধীর আগ্রহের সাথে অপেক্ষা করছি।

গ্রীষ্মকালে, কাউন্সিল বর্ণবাদ বিরোধী ও সমতার ইস্যূগুলোর ব্যাপারে অধিকতর নজর দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলোএবং বারার পাবলিক স্পেস বা সার্বজনিন স্থানগুলোতে জাতি, বর্ণ ও সাম্যের বিষয়গুলো কিভাবে প্রতিনিধিত্ব করবে সে ব্যাপারে জনসাধারণের অভিমত জানতে চেয়েছিলো। এসব পরামর্শ ও সুপারিশগুলো পর্যালোচনা করা হবে, যার ফলে স্থানান্তরকরণ, ব্যাখ্যামূলক তথ্য সংযোজন, পূণঃনামকরণ অথবা অপসারণ ইত্যাদি পদক্ষেপ নেয়া হতেও পারে।কিছু কিছু ক্ষেত্রে কোন ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার প্রয়োজনীয়তা নেই বলেও সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। কাউন্সিল কিভাবে এই সকল সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে কমিউনিটির সত্যিকারের অংশ গ্রহণ নিশ্চিত করবে, সে ব্যাপারে আরো বিশদ তথ্য আগামী সপ্তাহগুলোতে প্রকাশ করা হবে।

কমিশনের কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত হতে এবং হালনাগাদ তথ্যাদি অবহিত হতে বারার বাসিন্দা ও সংগঠনগুলোকেwww.towerhamlets.gov.uk/raceinequalitiescommission  – এই ওয়েবসাইট ভিজিট করতে অনুরোধ করা হয়েছে।

ডেপুটি মেয়র, কাউন্সিলর আসমা বেগমকে চেয়ার করে গঠিত এই কমিশনের সদস্যরা হচ্ছেন, কাউন্সিলর মুফিদাবাস্টিন (কেবিনেট মেম্বার ফর প্ল্যানিং এন্ড সোশ্যাল ইনক্লুজন), লর্ড সায়মন উলি (ডিরেক্টর অব অপারেশন ব্ল্যাকভোট), সাফিয়া জামা (ডিরেক্টর অব উইমেন্স ইনক্লুসিভ টিম), ডক্টর ক্যাম্বিজ বুমলা (সিনিয়র লেকচারার, ইন্সটিটিউটঅব পপুলেশন হেলথ সায়েন্স, কুইন মেরি ইউনিভার্সিটি, লন্ডন), ইয়ান পার্কস (চীফ এক্সিকিউটিভ, ইস্ট লন্ডনবিজনেস এ্যালায়েন্স), ভিভিয়ান আকিন রেমি (ডেপুটি ইয়াং মেয়র অব টাওয়ার হ্যামলেটস্), এডউইন এন্ডলভিউ(ডিরেক্টর অব অপারেশন্স ফর ইস্ট লন্ডন এনএইচএস ফাউন্ডেশন ট্রাষ্ট), প্যাম ভার্মা (চেয়ার অব দ্যা টাওয়ারহ্যামলেটস হাউজিং ফোরাম) এবং গ্রায়াম ম্যাকডোনাল্ডস (ম্যানেজিং ডিরেক্টর অব সোলেজ এন্ড সোলেজ ইন্বিজনেস)।

Related Articles

Back to top button