third eye

আর্জেন্টিনা এবং ব্রাজিল চিনে না বাংলাদেশকে!

এমডি রিয়াজ হোসেন।। ইতালীতে বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে তেমন উত্তাপ নেই। কারন এবার  রাশিয়া যাচ্ছে না ইতালী ।
ইতালীয়ানদের এবার খেলা দেখার আগ্রহ কম। বাংলাদেশে গত কয়েকদিন যাবৎ ফেসবুকে ব্রাজিল এবং আর্জিণ্টিনা নিয়া চলছে পাল্টাপাল্টি সমালোচনা।কারো হাতে বদনাও ধরিয়ে দিয়ে দিচ্ছে কেউ কেউ। প্রশ্ন হচ্ছে এই সময় পায় কোথায় জানি না। নষ্ট হচ্ছে এমবি খালি হচ্ছে হাত। সামনে ঈদের সময় নিজের পরিবার বা  ভাই বোনের প্রতি খরচ কমিয়ে  দেখা যাবে ভিনদেশী  পতাকা বানাবে সমার্থকরা । খেলা দেখা নিয়ে হবে মারামারি । কেউ স্ট্রোক করে পত্রিকায় শিরোনাম হবে।আবার কেউ জমি বিক্রি করে পতাকা বানিয়ে দেশ জুড়ে আলোচনায় আসবে। এবার আসি মূল কথায়। ২০০৬ সালে নিজে পতাকা বানিয়ে বাড়ির সামনে গাছে টানিয়ে রেখেছিলাম। ছোট বেলা থেকেই ব্রাজিলের সাপোর্টার। ইতালী আসার পর সাপোর্ট পরিবর্তন করেনি তবে ইতালীর প্রতি ভালবাসা তৈরি হয়। যে দেশে থাকি সেই দেশের বিরুদ্ধে গিয়ে রাজাকার হতে চাইনি। ইতালি বা রোম ক্লাব জিতলে আনন্দিত হই। আবার হারলে খারাপও লাগে।ট্যুরিজম কোম্পানিতে কাজ করি তাই অনেক ব্রাজিলিয়ান এবং আর্জেন্টাইন নাগরিকদের সাথে দেখা হয়, কথা হয়। হঠাৎ কৌতূহল জাগল, এদের কাছে জেনে নি বাংলাদেশ চিনে কিনা। যে দেশে ব্রাজিল এবং আর্জেন্টিনার জন্য মানুষ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। ম্যাচ জয়ে আত্মহারা হয় আবার পরাজয়ে আত্মহত্যা করে! ষ্ট্রোক করে মারা যায়! গত পনের দিনে প্রায় বিশ জন আর্জেন্টাইন এবং ব্রাজিলিয়ান নাগরিকের উপর জরিপ চালিয়ে ছিলাম। তাদের কাছে প্রশ্ন ছিল, তারা  বাংলাদেশকে চিনে কিনা? সরাসরি উত্তর না। দু জন বলেছে, চিনে ইন্ডিয়া। আবার একজন পাল্টা প্রশ্ন করে বলেছে, যে দেশে ইতালীয়ান হত্যা করা হয়েছে?
আমি জিজ্ঞাসা করলাম তোমার দেশ আর্জেন্টিনা গত বিশ্ব কাপে ফাইনালে জার্মানির কাছে হেরে যাওয়ায় আমার দেশে দুজন মারা গেছে । তোমার দেশের মিডিয়ায় কি সেই খবর প্রচার করেছে? ভদ্র মহিলা বলল, আমাদের চোখে পরে নি । তার কথা হল, খেলায় হারজিত আছে, সাময়িক কষ্ট পাই পরে ঠিক হয়ে যায়।এখানে মারা যাওয়ার কি আছে?
আমরা এমন দেশের সমর্থক যে দুই দেশ  ব্রাজিল এবং আর্জেন্টিনা আমাদের বাংলাদেশকে চিনে না অথচ সেই দেশের পতাকা উড়াতে গিয়ে ছাদ থেকে পরে গিয়ে মারা যাই! আমরা কি আসলেই ফুটবল প্রেমিক নাকি বোকা? আমি সব সময় দুর্বল দলের পক্ষে । শক্তিশালী দল দুর্বল দলের কাছে হেরে গিয়ে আগামী বিশ্বকাপ নতুন একটি দেশ পাবে এমনটাই প্রত্যাশা ।
এমডি রিয়াজ হোসেন: প্রবাসী  সাংবাদিক, ইতালীর রোম থেকে।

 

Back to top button