বিয়ানীবাজারে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার নিয়ে পুলিশের লুকোচুরি!

বিয়ানীবাজার থেকে সংবাদদাতা :: বিয়ানীবাজারের মাথিউরা পূর্বপাড়ের একটি বাড়ী থেকে দুটি অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র কয়েকটি দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে এক অভিযানে পুলিশ অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্রসহ সুমন আহমদ (৩০) নামে একজনকে আটক করেছে। কিন্তু অবৈধ অস্ত্রসহ আটকের বিষয়টি মিডিয়ার কাছে গোপন রাখছে বিয়ানীবাজার থানা পুলিশ। এমনকি অস্ত্র উদ্ধারের বিষয়টি ধামাচাপা দিতে গণমাধ্যম কর্মীদেরও এড়িয়ে চলছে পুলিশ। এদিকে এ বিষয়টি গোপনে আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে ধামাচাপা দেয়ারও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বিশ্বস্থ সূত্রে জানা গেছে, বিয়ানীবাজার থানার একদল পুলিশ বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার মাথিউরা ইউনিয়নের পুর্বপার গ্রামের একটি বাড়ী থেকে দুটি অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্রসহ বিপুল পরিমাণ রামদা উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। অস্ত্রগুলোর উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসার পর থেকে শুরু হয় তদবীর। ওই সূত্রটি জানায়, বিভিন্ন মহলের তদবীরের পর বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অবনী শংকর কর বিষয়টি নিয়ে লুকোচুরি শুরু করেন। দফায় দফায় থানার কর্মকর্তাদের নিয়ে তিনি বৈঠক করেন। গণমাধ্যমকর্মীরা বিষয়টি যাতে না জানেন সে চেষ্টা করা হয়।

বিয়ানীবাজার থানার এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে মাথিউরা ইউনিয়নের পূর্বপার গ্রামের সমস উদ্দিনের ছেলে সুমন আহমদ এর বাড়ী থেকে দুটি দেশীয় রিভলভারসহ বিপুল পরিমাণ রামদা উদ্ধারের তথ্য নিশ্চিত করেন।

বৃহস্পতিবার রাতে বিয়ানীবাজার থানার ওসি অবনী শংকর করের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি প্রথমে এ বিষয়ে কথা বলতে চাননি। পরে সকল তথ্য ই-মেইলে প্রেরণ করবেন বলে জানান।

গভীর রাতে এ সংক্রান্ত তথ্য না আসায় ওসির সাথে পুণরায় যোগাযোগ করা হলে ওসি জানান, ডিএসবি’র অনুমতি ছাড়া কোন তথ্য দেয়া যাবে না। কথা বলার এক পর্যায়ে ওসি বলেন, সময় মতো সব তথ্য দেওয়া হবে। এ নিয়ে সাংবাদিকরা টেনশন করবেন না।

শুক্রবার বিকেলে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ওসি অবনী শংকরের থানা থেকে কোন তথ্য কিংবা ই-মেইল প্রদান করা হয়নি। তবে এএসপি সার্কেল (জকিগঞ্জ) সুদীপ্ত রায় বৃহস্পতিবারের উদ্ধার অভিযানের তথ্য নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, রিভলভার দুটি উদ্ধারের পর থেকে তিনি ও এডিশনাল এসপি (দক্ষিণ) বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত থানায় ছিলেন।

এএসপি সার্কেল জানান, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার পুলিশের পজিটিভ কাজ ওসি তা কেন গোপন করছেন, বিষয়টি তিনি খতিয়ে দেখছেন এবং সুমনকে গ্রেফতারের জন্য তারা বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করছেন।

Leave a Reply

Developed by: TechLoge

x