প্রবাস

নেদারল্যান্ডসে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত

ব্রিট বাংলা ডেস্ক :: নেদারল্যান্ডসের দি হেগ শহরে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে পালিত হয়েছে ৪৮তম মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) দূতাবাসের ‘বাংলাদেশ হাউজ’-এ আয়োজিত অনুষ্ঠানে কর্মকর্তাবৃন্দ ও আমন্ত্রিত অথিতিদের উপস্থিতিতে এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই দিবস পালন করা হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতে সকালে দূতাবাসের কর্মকর্তা/কর্মচারীরা তাদের পরিবার এবং বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যরা একসাথে শুদ্ধভাবে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন। পরবর্তীতে দিবসটি উপলক্ষ্যে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ করা হয়। এরপর নেদারল্যান্ডস সরকারের পক্ষে নেদারল্যান্ডস পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা উইং-এর মহা-পরিচালক মিজ রেইনা বুইস বক্তব্য রাখেন। তার বক্তব্যে তিনি স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষ্যে বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানান এবং সংক্ষিপ্তাকারে দুইদেশের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতার ক্ষেত্রগুলো তুলে ধরেন।

তিনি এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ বদ্বীপ পরিকল্পনা-২১০০ এর বাস্তবায়ন, পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনা, কৃষি ইত্যাদি খাতে আগামী বছরগুলোতে দুদেশের মধ্যকার পারস্পরিক সহযোগিতার ক্ষেত্র আরও সম্প্রসারিত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। মিজ বুইস নেদারল্যান্ডস সরকারের তরফ থেকে মানবতার কল্যানে বাংলাদেশ সরকারের ভূয়সী প্রশংসা করেন। মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তচ্যুত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় প্রদানের জন্য তিনি বাংলাদেশের প্রশংসা করেন এবং এই সমস্যা নিরসনে নেদারল্যান্ডস বাংলাদেশের পাশে থাকবে বলেও তিনি আশ্বস্ত করেন।নেদারল্যান্ডসে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিতনেদারল্যান্ডসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শেখ মুহম্মদ বেলাল দূতাবাসের সদস্যদের সহ অতিথিবৃন্দকে স্বাগত জানান। সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় রাষ্ট্রদূত বেলাল বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বলিষ্ঠ এবং দূরদর্শী নেতৃত্বকে স্মরণ করে তার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রার প্রতি ইংগিত করে তার বক্তব্যে ক্ষুধা ও দারিদ্র মুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণের মাধ্যমে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ গড়ার পথে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে মর্মে উল্লেখ করেন। তিনি তার বক্তব্যে ১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সকল শহীদদের আত্মত্যাগ গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন।নেদারল্যান্ডসে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিতমাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ দ্রুত এবং টেকসই উন্নয়ন অর্জনে সক্ষম হচ্ছে বলে রাষ্ট্রদূত বেলাল মন্তব্য করেন। একটি শান্তিপূর্ণ, সকল ধর্ম, মত ও পথের সম্মেলন এবং জ্ঞান ভিত্তিক বাংলাদেশ গড়ার মাধ্যমে বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে একটি মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে বলে প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।

রাষ্ট্রদূত বেলাল আরও উল্লেখ করেন, জাতি হিসেবে বাংলাদেশীরা অত্যন্ত শান্তিপ্রিয় একটি জাতি, যার প্রেরণাতেই মিয়ানমার থেকে প্রায় দশ লক্ষ বাস্তচ্যুত রোহিঙ্গাদের মানবতার খাতিরে আশ্রয় দিতে পেরেছে। রোহিঙ্গা সংকটের ন্যায় মানবিক বিপর্যয় মোকাবেলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ কর্তৃক যেসকল পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে তা তুলে ধরেন এবং বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় দেওয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ খেতাবে ভূষিত করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

তিনি নেদারল্যান্ডসে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশীদের দু’দেশের সম্পর্ককে আরও মজবুতকরণের লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান জানান। বিভিন্ন ক্ষেত্রে ডাচদের উদ্ভাবনী জ্ঞানের সঙ্গে বাংলাদেশের সংযোগের মাধ্যমে উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করার জন্যও তিনি প্রবাসী বাংলাদেশীদের আহ্বান জানান।নেদারল্যান্ডসে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত‘বাংলাদেশ হাউজ’-এ আয়োজিত এই অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রদূতের বাসভবন বর্ণিল পোষ্টার, ব্যানার, লাল-সবুজ ফুল এবং ঐতিহ্যবাহী সাজসজ্জায় সুসজ্জিত করা হয়। বাংলাদেশের অতিথিপরায়ণতার নিদর্শন স্বরূপ প্রবেশপথের দুইপাশে ফুলে শোভিত লাল গালিচা বিছানো হয়। অভ্যর্থনায় উল্লেখযোগ্য সংখ্যক অতিথির সমাগম ঘটে যাদের মধ্যে স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, কূটনৈতিক কমিউনিটির সদস্যবৃন্দ, শিক্ষাবিদ, বৈজ্ঞানিক, বিচারক, স্থানীয় মিডিয়ার প্রতিনিধিবৃন্দ এবং নেদারল্যান্ডসের বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যগণ। অতিথিরা দূতাবাসের আয়োজনে তাঁদের সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং পরিবেশিত বাংলাদেশী ঐতিহ্যবাহী খাবার উপভোগ করেন।

Related Articles

Back to top button