বিন্দু থেকে সিন্দু

রোমানিয়ার রহস্যময় গুহা, এ যেন মাটির নীচে অন্য পৃথিবী!

কমপক্ষে ৫০ লাখ বছরের বেশি সময় ধরে অন্ধকারে ডুবে ছিল। ১৯৮০-তে প্রথম খোঁজ মেলে অদ্ভুত এই গুহার। সেই থেকে আজও রোমানিয়ার মোভিল গুহার ভিতরের রহস্য ভেদে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। এ যেন মাটির নীচে অন্য পৃথিবী!

গুহার ভিতরের বাস্তুতন্ত্রের সঙ্গে বাইরের জগতের সাদৃশ্য প্রায় নেই বলেই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে গুহার অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি এখনও সঠিকভাবে পর্যালোচনা করা সম্ভব হয়নি। এর পিছনেও একাধিক কারণ রয়েছে, গুহার বেশ কিছু অংশ বিষাক্ত হওয়ায় এবং রোমানিয়ান সরকারের অনিচ্ছায় বেশি বিজ্ঞানীর গুহার ভিতরে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

মোভিল গুহার ভিতরের অধিকাংশ জীবই লক্ষ বছর আগের প্রজাতির বলে মনে করা হয়। এদের মধ্যে খোঁজ পাওয়া অধিকাংশই পোকামাকড় বা বিলুপ্ত প্রজাতির সরীসৃপ বলে ধারণা বিশেষজ্ঞদের।

বিকট দেখতে মাকড়সা, পোকা, জোঁক এবং কেন্নোর দেখা মিলেছে মোভিল গুহার ভিতরে। গর্তবাসী হওয়ার কারণে এদের বহু অংশ লুপ্তপ্রায় হয়ে যায় বলেও ধারণা করা হয়।

গুহার ভিতরে অক্সিজেনের অনুপস্থিতির কারণে বিজ্ঞানীদের প্রবেশেও সমস্যা তৈরি হয়। ভিতরের বিচিত্র প্রাণীদের অবশ্য কার্বন ডাই-অক্সাইড ও হাইড্রোজেন সালফাইডে সমস্যা হয় না। এমন ৫০-এর কাছাকাছি প্রজাতির বাস ওই গুহায়।

লক্ষ লক্ষ বছর আগের পৃথিবীর সম্পর্কে ধারণায় এই গুহার গুরুত্ব অত্যাধিক বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। একে ঘিরে তাই আরও পরীক্ষা চালানো জরুরি।

Related Articles

Back to top button