অস্ট্রেলিয়ায় ক্ষমতাসীন দলের আবারও জয়

Posted on by

ব্রিট বাংলা ডেস্ক :: অস্ট্রেলিয়ার ৪৬তম জাতীয় নির্বাচনে জয় পেয়েছে দেশটির ক্ষমতাসীন লিবারেল ও ন্যাশনাল পার্টির জোট। টানা তৃতীয়বারের মতো জয়লাভ করল দলটি। আজ শনিবার দিনব্যাপী ভোট গ্রহণের পর স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টায় ভোট গণনা শুরু হয়। নির্বাচনের পূর্ণ ফলাফল প্রকাশের আগেই জয় নিশ্চিত করে বর্তমান সরকার দল।

নির্বাচনে তুমুল লড়াইয়ের শুরু থেকেই এগিয়ে ছিল ক্ষমতাসীন লিবারেল পার্টি। দেশটির ১৫১টি নির্বাচনী আসনে ভোট গ্রহণ করা হয়, যার মধ্যে সরকার গঠন করতে ৭৬টি আসনে জয় প্রয়োজন হয় একটি দলের। তবে এখনো পর্যন্ত ৭৪টি আসনে জয়লাভ করেই নতুন সরকার গঠন নিশ্চিত করেছে লিবারেল ও ন্যাশনাল পার্টি জোট দল। যে ৬টি আসনের ফলাফল ঘোষণা বাকি আছে সেগুলোর মধ্যেও দুটি আসনে এগিয়ে আছে লিবারেল পার্টি। অন্যদিকে সম্ভাবনা তুঙ্গে থাকা বিরোধী দল লেবার পার্টি এখন পর্যন্ত জয় পেয়েছে ৬৫টি আসনে।

পরাজয় মেনে নিয়ে লেবার পার্টির প্রধান বিল শর্টেন লিবারেল পার্টি ও স্কট মরিসনকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে দলীয় প্রধানের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতির কথা জানিয়ে এক বক্তব্যে তিনি বলেছেন, ‘আমি সংসদে থাকব, তবে হয়তো দলের নেতৃত্বে নয়।’ যদিও ভোট গণনা শুরুর আগ পর্যন্ত শর্টেনকে জয়ের সম্ভাবনায় আনন্দিত থাকতে দেখা গিয়েছিল।

দেশটির ১৫১টি আসনে লিবারেল পার্টি জয় পেয়েছে ৪১টি আসনে। আর ন্যাশনাল পার্টি জিতেছে ৩৩টি আসনে। গোটা অস্ট্রেলিয়ার গুরুত্বপূর্ণ ৪৭টি নির্বাচনী আসনের ৩১টিতেই জয় পেয়েছে লিবারেল পার্টি। এ ছাড়া বিরোধী দলের সমর্থক বেশি এমন ৫টি আসনেও আশাতীত জয়লাভ করে দলটি। দেশটির অন্যান্য দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয় পায় ৫টি আসনে। দেশটির অন্যতম রাজ্য নিউ সাউথ ওয়েলসে প্রায় ১০ শতাংশ বেশি ভোটে এগিয়ে ছিল লিবারেল। অন্যদিকে জাতীয় নির্বাচনে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ রাজ্য ভিক্টোরিয়ায় ২ শতাংশ বেশি ভোট আসে লেবারের পক্ষে।

দেশটির ৭ হাজার ভোট কেন্দ্রে আজ প্রায় দেড় কোটি ভোটার ভোট দেন। নির্বাচনের আগে প্রি-ভোট দেন প্রায় ৪৭ লাখ ভোটার। এই প্রথমবারের মতো নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন স্কট মরিসন। গত বছর দলীয়ভাবে প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসেছিলেন তিনি। তাঁর নির্বাচনী এলাকা নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যের কুক থেকে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেছেন তিনি। একই দৃশ্য দেখা গেছে বিরোধী দলের প্রধান বিল শর্টেনের নির্বাচনী এলাকাতেও। তবে লিবারেলের অন্যতম নেতা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবটের ভাগ্য সুপ্রসন্ন ছিল না। তাঁর আসন থেকে প্রায় ১৭ শতাংশ ভোটের ব্যবধানে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলি স্ট্যাগাল।

Leave a Reply

Developed by: TechLoge

x