কমিউনিটি

চ্যানেল এসের রামাদান ফ্যামিলি কমিটমেন্টের অর্থ বন্টন

চলতি বছর চ্যানেল এসের রামাদান ফ্যামিলি কমিটমেন্টে প্রায় ১শ ১১ হাজার ৯শ ৬১ পাউন্ড সংগৃহিত হয়েছে। বুধবার চ্যানেল এসে লাইভ অনুষ্ঠানে সংগৃহিত অর্থ ২১টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বন্টন করে দেওয়া হয়। একই অনুষ্ঠানে আরএফসির এম্বেসেডর, ন্যাশনাল হিরো এবং ফ্রেন্ডস অব আরএফসি সদস্যদের এওয়ার্ড প্রদানের মাধ্যমে সম্মান জানানো হয়।
২০০৭ সালে যাত্রা শুরু করে চ্যানেল এসের রামাদান ফ্যামিলি কমিটমেন্ট সংক্ষেপে আরএফসি। আরএফসিতে একটি দানের মাধ্যমে রামাদানে যেসব সংগঠন চ্যানেল এসে ফান্ড রেইজিং করে সেই সব সংগঠনগুলোকে সমানভাবে দান করতে পারেন দানশীলরা। চ্যানেল এসের প্রেজেন্টার সুলতান আহমেদের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চ্যানেল এসের চেয়ারম্যান আহমেদ উস সামাদ চৌধুরী জেপি।


গত রামাদানে আরএফসিতে সংগৃহিত অর্থের পুরো হিসাব তুলে ধরেন চ্যানেল এসের সিইও তাজ চৌধুরী। তিনি জানান, গত রামাদানে চ্যানেল এসে ২১টি প্রতিষ্ঠান ফান্ড রেইজিং করে। এই প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্যে এবার আরএফসিতে ১শ ১১ হাজার ৯শ ৬১ সংগৃহিত হয়েছে।


অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিদের হাতে আরএফসির সনদ তুলে দেওয়া হয়। মুসলিম এইডের পক্ষ থেকে সনদ গ্রহণ করেন মুসলিম এইডের ফান্ড রেইজিং অফিসার আবুল কালাম, ইসলামিক রিলিফের কমিউনিকেশন অফিসার সুলতান আহমেদ, আল কোরআন একাডেমীর ফান্ডরেইজিং অফিসার এম এ হামিদ, মুসলিম হ্যান্ডসের প্রধান ইয়াতবার শাহ, ইস্ট লন্ডন মসজিদ এন্ড লন্ডন মুসলিম সেন্টারের ডাইরেক্টর আয়ূব খান, স্টেপনি শাহজালাল মসজিদের সেক্রেটারী ফুল মিয়া, ইকরা ইন্টারন্যাশনালের সিইও জিয়াউর রহমান, মুনতাদা এইডের ডক্টর তুহিনুল ইসলাম খালিল, মা চ্যারিটির ফাহমিদা, ইসলামিক হ্যালপের সাবু মালিক, অরফান শেল্টার ফাউন্ডেশনের ডক্টর জিয়াউল হক, হিউম্যান এইডসের আবজল মিয়া, বিয়ানীবাজার ক্যান্সার হাসপাতালের শাহাব উদ্দিন, আল মোস্তাফা ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের নিছার আহমেদ এবং নুরুল ইসলাম মস্ক ট্রাস্টের ইউসুফ হানসা স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সনদ গ্রহণ করেন। এছাড়াও গ্লোবাল এইড, মসজিদুল আকসা, বায়তুল আমান মসজিদ, মসজিদে আল নুর এবং ইডেনকেয়ারের প্রতিনিধিরা সনদ গ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে সনদ গ্রহণ করার জন্যে সবাইকে ধন্যবাদ জানান আরএফসির চেয়ারম্যান ডক্টর জিয়াউল হক।

চ্যানেল এসে প্রচারিত রিপোর্টটি ব্রিটবাংলার পাঠকদের জন্যে নীচে তুলে দেওয়া হল:

এদিকে গত কয়েক বছর ধরে আরএফসির ফান্ড রেইজিংয়ে বৈচিত্র আনা হয়েছে। এরমধ্যে অন্যতম হল শিশু এবং বয়স্কদের খেলাধুলার মাধ্যমে ফান্ডরেইজিংয়ে উৎসাহিত করা। আর এই কাজটিতে চ্যানেল এসকে সহযোগিতা করে আসছে স্পোর্টিং ফাউন্ডেশন। অনুষ্ঠানে স্পোটিং ফাউন্ডেশনের সিইও আরজ মিয়াকে এওয়ার্ড দিয়ে সম্মাননা জানানো হয়।

এছাড়াও আরএফসির জন্যে ১০ হাজার পাউন্ড করে ফান্ড রেইজ করায় আরএফসির এম্বেসেডর হিসেবে আজিজুর রহমান ও শরিফ ইসলাম এবং ২ হাজার পাউন্ড করে ফান্ড রেইজ করায় আরএফসির ন্যাশনাল হিরো হিসেবে ডক্টর হুসনে আরা বেগম, আনিস রহমান, সানাম মিয়া, একাউন্টেন্টস আবুল হায়াত নুরুজ্জামান, ব্যারিষ্টার তারেক চৌধুরী এবং ১ হাজার পাউন্ড ফান্ড রেইজ করায় ফ্রেন্ডস অব আরএফসি ইশানকে এওয়ার্ড প্রদান করা হয়।
চ্যানেল এসের সঙ্গে থেকে ফান্ড রেইজিংসহ বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করায় কমিউনিটির সবাইকে ধন্যবাদ জানান চ্যানেল এসের ফাউন্ডার মাহি ফেরদৌস।
চ্যানেল এসের ফান্ড রেইজিং কার্যক্রম দেশে বিদেশে ব্যাপক নাম কুড়িয়েছে বলে জানালেন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ইউকে সফরে আসা বাংলাদেশের সাংবাদিকরা।

Related Articles

Back to top button