ব্রিটবাংলা ডেস্ক : ১৫ ফেব্রুয়ারীর ভেতরে প্রায় ১৫ মিলিয়ন নাগরিককে করোনা ভ্যাকসিন প্রদানের লক্ষ্যে ইংল্যান্ডে নতুন করে আরো ১০টি বড় ভ্যাকসিন সেন্টার খোলা হয়েছে।

সেন্টারগুলো হল, ডরসেটের বর্নমাউথ ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার, সমারসেটের টানটন্ট রেসকোর্স, ল্যাঙ্কাশায়ারের ব্ল্যাকবার্ন ক্যাথিড্রাল, বার্কশায়ারের সল্ট হিল এক্টিভিটি সেন্টার, নরফোকের নরউইচ ফোড কোর্ট, এসেক্সের উইকফোর্ড দ্যা লজ, লিঙ্কনশায়ারের প্রিন্সেস রয়েল স্পোর্টস এরিনা, মার্সিসাইডের সেন্ট হেলেনস রাগবি গ্রাউন্ড, ইয়র্কের দ্যা পার্ক এন্ড রাইড এবং নর্থ লন্ডনের ওয়েম্বলির ওলিম্পিক অফিস সেন্টার।

নতুন এই ১০টি ভ্যাকসিন সেন্টার থেকে ৭০ বছর কিংবা তারো উর্ধ্ব বয়সী, বা ক্লিনিকাললি মারাত্মকভাবে অসুস্থ্যসহ অগ্রাধিকার তালিকার তৃতীয় এবং চতুর্থস্থরে থাকা অন্তত ৫ মিলিয়ন মানুষকে ভ্যাকসিন গ্রহনের জন্যে আহ্বান জানানো হবে।

এর আগে প্রথম দফায় চালু হওয়া ৭টি বিশাল সেন্টার থেকে ভ্যাকসিন প্রদান অব্যাহত রয়েছে। এ ছাড়া সোমবার থেকে স্কটল্যান্ড, ওয়েলস এবং নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডেও বিশাল তিনটি ভ্যাকসিন সেন্টার খোলা হয়েছে।

ব্রিটেনে এ পর্যন্ত প্রায় ৩ দশমিক ৮ মিলিয়ন মানুষ করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ গ্রহন করেছেন। আর করোনা মহামারীর পর থেক এ পর্যন্ত ব্রিটেনে প্রায় ৩ দশমিক ৪ মিলিয়ন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

এদিকে এনএইচএস ইংল্যান্ডের প্রধান স্যার সায়মন স্টিভেন্স জানিয়েছেন, ইংল্যান্ডের প্রতি ৩০ সেকেন্ডে ১ জন করোনা রোগি হাসপাতালের ভর্তি হচ্ছে। করোনা রোগির চাপের পাশাপাশি হাসপাতালগুলো স্টাফ স্বল্পতায়ও ভুগছে। বর্তমানে এনএইচএসের প্রায় ১শ হাজারের বেশি স্টাফ কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছে। তাদের প্রায় অর্ধেকই করোনায় আক্রান্ত অথবা সেল্ফ আইসোলেটে রয়েছে বলে এনএইচএস জানিয়েছে। এর ফলে হাসপাতালের ব্যস্ত ওয়ার্ডগুলোতে বাড়তি চাপ পড়ছে। যদিও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ইংল্যান্ড, স্কটল্যান্ড, ওয়েলস এবং নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডে হাসপাতালের স্টাফ এবং কেয়ারওয়ার্কারদের ভ্যাকসিন প্রদান করা হচ্ছে।

৭২ বছরের এনএইচএসের ইতিহাসে এমন চাপে পড়েনি এনএইচএস।

 

Advertisement