ইসলামিক স্কুলে ছেলে-মেয়েদের আলাদা বসানো বেইআইনী- ইংল্যান্ডের কোর্ট অব আপিলের রায় : Birmingham Islamic faith school guilty of sex discrimination

ব্রিটবাংলা রিপোর্টে : ধর্মীয় বিশ্বাসের ভিত্তিতে ইসলামিক স্কুলে ছেলে ও মেয়েদের আলাদা বসার ব্যবস্থাকে বেআইনী বলে রায় দিয়েছে ইংল্যান্ডের কোর্ট অব আপিল। শুক্রবার কোর্ট অব আপিলের তিন সদস্যের প্যানেল এই রায় দেন। গত বছর অফস্টেডের পক্ষ থেকে লিঙ্গভেধে ক্লাসরুমে ছাত্র-ছাত্রীদের আলাদা বসানোর বিরুদ্ধে ২০১০ সালের ইকুয়ালিটি আইন অনুযায়ী নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল। এরপর গত নভেম্বরে হাইকোর্ট অফস্টেডের এই ধারণাকে ভ্রান্ত বা ভুল বলে রায় দেয়। এই রায়কে কোর্ট অব আপিলে চ্যালেঞ্জ করেছিল অফস্টেড। শুক্রবার কোর্ট অব আপিল অফস্টেডের পক্ষে রায় দেয়। রায়ে বলা হয়, স্কুলে আধুনিক যুক্তরাজ্যে জীবনযাপনের জন্য শিশুদের যথাযথভাবে প্রস্তুত করা হচ্ছে কি না এ বিষয়টি নিশ্চিত করা অফস্টেডের কাজ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে কখনোই লিঙ্গ বা অন্য কোনও কারণে শিক্ষার্থীদের প্রতি কম সুবিধাজনক আচরণ করা উচিত নয়। উল্লেখ্য বার্মিংহ্যাম সিটি কাউন্সিল পরিচালিত আল হিজরা স্কুলে ৪ থেকে ১৬ বছরের শিক্ষার্থীদের পড়ানো হয়। এ মধ্যে ইয়ার ফাইভ থেকে ছেলে-মেয়েদের আলাদা ক্লাস রুমে বসানো হয়। তাদের জন্যে স্কুলের ট্রিপসহ সবকিছু আলাদা থাকে। ইংল্যান্ডে প্রায় ২০টি ইসলামিক, জুইস এবং ক্রিশ্চিয়ান স্কুলে ছাত্র-ছাত্রীদের আলাদা বসানো হয় বলেও জানা গেছে। তবে আল হিজরা স্কুল নিয়ে কোর্ট আপিলের রায়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন অভিভাবকরা। আপিল শুনানিতে অংশ নিয়ে আল হিজরাহ’র অন্তর্বর্তীকালীন নির্বাহী বোর্ড দাবি করেছে, শুধু ধর্মীয় কারণেই ছাত্র ও ছাত্রীদের পৃথকভাবে ক্লাস করানো হয়। তবে স্কুল তার সব শিক্ষার্থীকেই সমান চোখে দেখে।

Birmingham Islamic faith school guilty of sex discrimination

An Islamic faith school’s policy of segregating boys and girls is unlawful sex discrimination, a court has ruled.

The case was heard at the Court of Appeal as Ofsted challenged a High Court ruling clearing the Al-Hijrah school in Birmingham of discrimination.

Ofsted’s lawyers argued the segregation left girls “unprepared for life in modern Britain”.

Appeal judges ruled the school was discriminating against its pupils contrary to the Equality Act.

However, the court did not accept the argument the school’s policy had disadvantaged girls more than boys.

The appeal judges also made it clear the government and Ofsted had failed to identify the problem earlier and other schools operating similarly should be given time “to put their houses in order”.

About 20 schools – Islamic, Jewish and Christian – are thought to have similar segregation policies.

The three appeal judges heard boys and girls, aged four to 16, attend the Birmingham City Council-maintained Al-Hijrah school, in Bordesley Green.

But from Year Five, boys and girls are completely separated for lessons, breaks, school trips and school clubs.

In 2016, Ofsted ruled the school was inadequate and it was put in special measures, saying its policy of separating the sexes was discrimination under the 2010 Equality Act.

In November, High Court judge Mr Justice Jay overruled the inspectors, saying that they had taken an “erroneous” view on an issue “of considerable public importance”.

During the appeal hearing, Peter Oldham QC, speaking for Al-Hijrah’s interim executive board, said the boys and girls at the school were treated entirely equally while segregated.

Birmingham City Council said it took the High Court action it had because it felt Al-Hijrah school had been held to a different standard than other schools with similar arrangements, which had not been downgraded by Ofsted as a consequence.

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Advertisement