Home যুক্তরাজ্য উবারের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের রায় বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা তৈরির চেস্টার অভিযোগ

উবারের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের রায় বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা তৈরির চেস্টার অভিযোগ

ব্রিটবাংলা ডেস্ক : ব্রিটেনে উবার ড্রাইভারদের সাধারণ কর্মচারীর মর্যাদা দিয়ে সরকার ঘোষিত নুন্যতম মজুরী এবং হলিডে সুবিধা দিতে গত ১৯ ফেব্রুয়ারী রায় দিয়েছে ব্রিটিশ সুপ্রিম কোর্ট। কোর্টের এই মাইল ফলক রায় অনুযায়ী, নুন্যতম মজুরী এবং হলিডে সুবিধা না দেওয়ার কারণে এই মামলার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট প্রায় ১০ হাজারের বেশি ড্রাইভারকে ক্ষতিপুরণ হিসেবে অন্তত ১০০ মিলিয়ন পাউন্ড পরিশোধ করতে হবে উবারকে। কিন্তু উবার এক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা বা বাঁধা সৃস্টির চেস্টা করছে বলে দ্যা গার্ডিয়ানে প্রকাশিত এক সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে।

২০১৬ সালে ২৩ জনের বেশি উবার ড্রাইভারের একটি গ্রুপের পক্ষ থেকে জেইমস ফ্যারার এবং ইয়াসিন আসলাম নামে দুজন উবার ড্রাইভার মামলা করেছিলেন উবার ড্রাইভারদের সাধারণ ওয়ার্কার বা কর্মচারীর মর্যাদা দিয়ে নুন্যতম মজুরী এবং হলিডে সুবিধা দেওয়ার দাবীতে। তখন অবশ্য উবার বলেছিল, উবারের ৬০ হাজারের বেশি ড্রাইভার, তাদেরকে সেল্ফ এমপ্লয়েড হিসেবে স্বাধীন চুক্তিতেই কাজ করতে হবে। নুন্যতম মজুরী বা বেতনের সাথে হলিডে পাবার অধিকার তাদের নেই।

কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের মাইলফলক রায়ের পর উবারের নর্দার্ন এবং ইস্টার্ন ইউরোপের জেনারেল ম্যানেজার জেমি হ্যাইউড ড্রাইভারদের কাছে ম্যাসেজ পাঠিয়ে জানিয়েছেন, ২০১৬ সালের কিছু ড্রাইভারকে কোর্টের রায় অনুযায়ী   ক্ষতিপুরণ প্রদানের জন্যে বাছাই করা হবে। কিন্তু এখন যারা আছেন তারা এই সুবিধা পাবেন না। কারণ এর ভেতরে উবার চুক্তিতে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন এনেছে। এখন ড্রাইভাররা আগের চাইতে বেশি তাদের ইনকাম নিয়ন্ত্রণের সুযোগ পাচ্ছেন।

সুপ্রিম কোর্টের রায়ে খুশি হলেও উবারের জেনারেল ম্যানেজারের এই বার্তা পেয়ে অনেক ড্রাইভারের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়েছে। আইনজীবিরা বলছেন, জেনারেল ম্যানেজার হ্যাইউড বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন। সুপ্রিম কোর্টের রায় বাস্তবায়নের পথে তিনি বাঁধা সৃস্টির চেস্টা করছেন বলেও মন্তব্য করেছেন আইনজীবিরা।

ড্রাইভারদের জন প্রতি অন্তত ১২ হাজার পাউন্ড ক্ষতিপুরণ দিতে হবে বলেও আইনজীবিরা মনে করছেন। তবে সুপ্রিম কোর্টের রায় উপেক্ষা করলে উবারের বিরুদ্ধে এমপ্লয়মেন্ট ট্রাইব্যুনালে যাবেন বলে উবার ড্রাইভারদের আশ্বস্ত করেছেন জেইমস ফ্যারার এবং ইয়াসিন আসলাম। ২০১৬ সালে তাদের গ্রুপে মাত্র ২৩ জন থাকলেও সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর এরিমধ্যে কয়েক হাজার ড্রাইভার তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। লি ডে নামে একটি লো ফার্মের এক মূখপাত্র জানিয়েছেন, ২ হাজার ২শ উবার ড্রাইভারের ক্ষতিপুরণ আদায়ের জন্য তারা লড়ছেন। অন্তত ২৬ মিলিয়ন পাউন্ডের বেশি ক্ষতিপুরণ পরিশোধ করতে হবে উবারকে। অন্যদিকে কেলার লিঙ্কনার নামে অন্য একটি লো ফার্ম ৮ হাজারের বেশি ড্রাইভারের জন্য আইনী লড়াই করছে। সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর আরো প্রায় ১ হাজারের বেশি ড্রাইভার তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন বলে জানিয়েছে এই ফার্মটি। তারাও আশা করছে উবারকে ৮০ মিলিয়ন পাউন্ডের বেশি ক্ষতিপুরণ গুনতে হবে।

এদিকে উবারের একটি সূত্র গার্ডিয়ানকে জেনারেল ম্যানেজার জেমি হ্যাইউডের বিভ্রান্তি ছড়ানোর বিষয়টি অস্বীকার করেছে। সূত্রটি জানিয়েছে, সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর কাজের ধরন পাল্টাতে উবার কনসাল্টিং শুরু করেছে। কনসালটেশন শেষে রায় বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে সহযোগিতার জন্যে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসার ঘোষণা দিতে পারে উবার।