কবর থেকে তুলে দাহ করা হল ডক্টর কেলির মরদেহ : Dr. Kelly’s body is dug up and cremated

ব্রিটবাংলা রিপোর্ট : ইরাকের অস্ত্র তদন্তকারী ব্রিটিশ বিজ্ঞানী ডক্টর ডেভিড কেলির মরদেহ কবর থেকে তুলে পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। কন্সপিরেসি থিয়োরিস্ট অর্থাৎ ষড়যন্ত্র তত্ত্ববিদদের ভয়ে এই কাজটি করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা।

দ্যা জাস্টিস ফর কেলি গ্রুপের দাবী, ডক্টর কেলি আত্মহত্যা করেননি। তাকে হত্যা করা হয়েছে। এজন্যে বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবীতে তারা ক্যাম্পেইন করে যাচ্ছে। ডক্টর কেলির মরদেহ কবর থেকে তুলে তা পুনময়না তদন্তের দাবীও তাদের। ২০০৪ সালে লর্ড হাটন ইনকোয়ারি শেষে ডক্টর কেলি আত্মহত্যা করেছেন বলে যে রিপোর্ট দিয়েছিলেন তা প্রত্যাখ্যান করেছে এই গ্রুপ। এরপর থেকে তাদের ক্যাম্পেইন অব্যাহত আছে।

সর্বশেষ ডক্টর কেলির কবরের পাশে কন্সপিরেসি থিয়োরিস্টদের উপস্থিতির চিহ্নও পান তার পরিবারের সদস্যরা। এক মধ্যরাতে অক্সফোর্ডশায়ারের লংয়ার্থে ডক্টর কেলির কবর এবং হেডস্টোন খুঁড়ার চেস্টা করা হয় বলেও সানডে টাইমসকে জানিয়েছে জাস্টিস ফর কেলি গ্রুপের এক সদস্য।

এ কারনে কবর থেকে ডক্টর কেলির মরদেহ চুরি হতে পারে বলেও শঙ্কিত ছিলেন তার পরিবারের সদস্যরা।

ওয়েলসের বিজ্ঞানী ডক্টর ডেভিড কেলি ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ে কাজ করতেন। তাকে ইরাকে জাতিসংঘের অস্ত্র পরিদর্শক হিসেবেও নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল।

২০০৩ সালে ইরাকের তৎকালিন প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের কাছে মারাত্মক মানব বিধ্বংসী অস্ত্র আছে এবং যে কোন সময় ব্রিটেনে হামলা করতে পারে বলে তৎকালিন টনি ব্লেয়ার সরকার যে রিপোর্ট প্রকাশ করেছিল। ওই রিপার্টের প্রধান উৎস হিসেবে ডক্টর কেলির নাম উল্লেখ করে তৎকালিন বিবিসি রিপোর্টার এন্ড্রো গিলিগান রেফারেন্স হিসেবে ডক্টর কেলির সঙ্গে (অফ দ্যা রেকর্ড) কথোপকথনের একটি গোপন রেকর্ড ফাঁস করে দেন। এরপরই ব্যাপক আলোচনায় আসেন  ডক্টর কেলি এবং পরবর্তীতে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

২০০৪ সালে তৎকালিন প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারের আমলে ডক্টর কেলির মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনের জন্য লর্ড হাটন তদন্ত কমিশন গঠন করা হয়। ওই তদন্ত রিপোর্টে ডক্টর কেলি তার বাগানের একটি ছুরি দিয়ে হাতের কব্জি কেটে আত্মহত্যা করেন বলে উল্লেখ করা হয়। তখন তার বয়স ছিল ৫৯ বছর। কিন্তু দ্যা জাস্টিস ফর কেলি গ্রুপের দাবী, ব্রিটিশ সিকিউরিটি সার্ভিস অতিরিক্ত পেইন কিলার খাইয়ে তাকে হত্যার পর হাতের কব্জি কেটে তিনি আত্মহত্যা করেন বলে চালিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই যুক্তিতে পুনরায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবী করে আসছে জাস্টিস গ্রুপ। টনি ব্লেয়ার পরবর্তী সরকার এসেও বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবী প্রত্যাখ্যান করে। তবে এই দাবীতে এখনো ক্যাম্পেইন অব্যাহত রেখেছে কন্সপিরেসি থিয়োরিস্টরা।

Dr. Kelly’s body is dug up and cremated

The remains of David Kelly, the Iraq weapons inspector, have been exhumed by his family after a sign was placed next to his grave by conspiracy theorists.

It is understood that the body has now been cremated after campaigners threatened to exhume his remains themselves amid speculation that he did not commit suicide.

The Welsh scientist had been employed by the British Ministry of Defence and had formerly been a weapons inspector for the United Nations in Iraq.

He died days after he was exposed as the source of a BBC report in 2003 which referred the government’s dossier on weapons of mass destruction as ‘sexed up’.

The Justice for Kelly group, which reject the Hutton inquiry’s findings that the scientist killed himself, placed a sign next to his grave calling for an inquest.

A family source told The Sunday Times: ‘They did the placard; they used to leave notes on the grave and they would have vigils.

‘Janice [Kelly’s widow] hated it, she felt it was a desecration, and asked the police to get them to stop.’

A member of Justice for Kelly told the newspaper that the grave and headstone, in Longworth, Oxfordshire, was dug up in the middle of the night.

Dr Kelly came to public prominence after he was revealed as the source of an off-the-record chat with BBC reporter Andrew Gilligan.

The Hutton Report later found that Dr Kelly, a member of a UN inspection team sent to Iraq to unearth weapons of mass destruction, had committed suicide.

However, many still believe the 59-year-old scientist may have been murdered by the security services.

Successive governments have refused to hold a full coroner’s inquest, making him the only person in modern English legal history to be denied a proper inquest.

Lord Hutton’s 2004 report, commissioned by Prime Minister Tony Blair, concluded that Dr Kelly killed himself by cutting his wrist with a blunt gardening knife.

However conspiracy theorists argue that the conclusion that Dr Kelly killed himself by severing the ulnar artery in his left wrist after taking an overdose of prescription painkillers is untenable because the artery is small and difficult to access, and severing it could not have caused death.

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Advertisement