কেবিনেটে রদবলের ইঙ্গিত দিলেন থেরিজা মে : PM Theresa May defends record ahead of cabinet reshuffle

ব্রিটবাংলা ডেস্ক : নতুন বছরের কাজ শুরুর আগে কেবিনেটে রদবদলের আশ্বাস দিলেন প্রধানমন্ত্রী থেরিজা মে। রোববার বিবিসিতে এক সাক্ষাতকারে এই ইঙ্গিত দেন প্রধানমন্ত্রী। বছরের শেষ দিকে বিভিন্ন কারণে কয়েকজন ক্যাবিনেট সদস্যের পদত্যাগের পর নতুন বছরে সরকারের কর্মপরিকল্পনা চুড়ান্তের লক্ষ্যে সোমবারই এই রদবদল হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
২০১৭ সালের ¯œ্যাপ জেনারেল ইলেকশনে একক সংখ্যাগরিষ্টতা হারিয়ে নিজ দলের ভেতরেই কিছুটা চাপের মধ্যে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী থেরিজা মে। এর মধ্যে ব্রেক্সিট আলোচনার পাশাপাশি কয়েকজন কেবিনেট সদস্যের পদত্যাগ এমনকি নিজের ঘনিষ্টজনকেও বিদায় করতে বাধ্য হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তাই কেবিনেট রদবদল করে ২০১৮ সালটি নতুনভাবেই শুরু করতে চান বলে জানান প্রধানমন্ত্রী থেরিজা মে।
রোববার বিবিসির সঙ্গে একান্ত সাক্ষাতকারে প্রধানমন্ত্রী জানান, শুধু ব্রেক্সিট ডিলই তার সরকারের প্রধান লক্ষ্য নয়। দেশের জনগুরুত্বপূর্ণ অন্যান ইস্যুকেও তার সরকার অগ্রভাগে রেখে কাজের পরিকল্পনা করছে। পরিবেশ রক্ষায় আরো মনোযোগি হবার আশ্বাসও দেন প্রধানমন্ত্রী। নতুন কোরে আরো প্রায় পনের মিলিয়ন গাছ লাগানোর পরিকল্পনার কথাও জানান তিনি।
তবে বছরের শুরুতেই ট্রেইনের ভাড়া বৃদ্ধি এবং এনএইচএস সার্ভিস নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে প্রধানমন্ত্রীকে।
অন্যদিকে লেবার অভিযোগ কোরে বলছে সরকারের বাজেট কাটের ফলেই এনএইচএস সার্ভিসে এই সমস্যার তৈরী হয়েছে। ব্যর্থ হেলথ সেক্রেটারীকেই প্রধানমন্ত্রী বেশি করে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছেন বলেও সমালোচনা করে লেবার।
উল্লেখ্য বছরের শুরুতেই এম্বুলেন্সের বিলম্বের কারণে দুজন বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে। এই মৃত্যুর জন্যে ক্ষমা চেয়েছে এম্বুলেন্স সার্ভিস। যদিও ইউনিয়নের পক্ষ থেকে এই দুই রোগির মৃত্যুও জন্যে সরকারের কাটকেও দায়ী করেছে। অন্যদিকে প্রচন্ড ঠান্ডার ধকল সামাল দিতে গিয়ে বছরের প্রথম সপ্তাহেই প্রায় চার হাজার নন-আর্জেন্ট অপারেশন বাতিল করে এনএইচএস। এর জন্যে হেলথ সেক্রেটারী জেরেমি হান্ট এবং প্রধানমন্ত্রী থেরিজা মে নিজে রোগিদেও কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন।

তবে ২০১৮ সাল থেকে শুরু করে আগামী বছরগুলো সরকারের জন্যে আরো কঠিন হতে পারে বলে ধারণা করা হলেও দৃঢ় প্রত্যয়ী প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, সম্ভাব্য সেরা একটি কেবিনেট টিম নিয়ে তিনি সম্ভাব্য সব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করবেন।

PM Theresa May defends record ahead of cabinet reshuffle

The prime minister has defended her record and set out her plans for the coming year, as she prepares to reshuffle her cabinet.

Speaking on the Andrew Marr Show, she defended NHS funding amid questions over the handling of winter pressures.

Mrs May also defended rail fare rises and pledged parole reform after the decision to release sex attacker John Worboys.

On the NHS, Labour said the PM lacked a plan to get “people off the trolleys”.

Theresa May confirmed a cabinet reshuffle was imminent, but refused to give any detail.

She is expected to replace Damian Green, who was sacked as first secretary of state in December, but keep key figures such as Chancellor Philip Hammond and Foreign Secretary Boris Johnson.

On the NHS, Theresa May said thousands of cancelled operations in January were “part of the plan” for coping with pressures on the health service.

She said she wanted cancelled operations to be “reinstated as soon as possible”, but added the government was “making sure that those who most urgently need care” get it quickly.

Mr Marr disputed the idea that urgent care was being delivered in time, raising the case of Leah Butler-Smith and her mother, who, having suffered a stroke, waited an hour in an ambulance and a further four in A&E before seeing a doctor.

“If I’d been waiting for five hours before I’d seen a doctor after my stroke I would not be here talking to you,” he said.

“This is about life and death, and up and down the country people are having horrendous experiences of the NHS.”

The prime minister said she had not heard of the specific case and so could not comment, and insisted that the NHS was delivering more than ever before.

“But of course nothing’s perfect and there is more for us to do”, she added.

Mrs May also defended the rail fare increase announced at the beginning of January, saying that rises were in line with inflation.

“For every pound that somebody pays on a ticket in the railways, 97p of that goes back into investment in the railways.” she said.

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Advertisement