জামিন পেলে খালেদার বিদেশ যেতে চাওয়ার বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে জানানো হয়েছে

ব্রিট বাংলা ডেস্ক :: কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে কথা বলেছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব, সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ। বুধবার সচিবালয়ে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কদের এ তথ্য জানান ।
খালেদা জিয়া জামিন পেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে চান, এই বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে বলা হয়েছে বলে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জামিন পেলে চিকিৎসকরা যদি খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেওয়ার পরামর্শ দেন, তখনই সরকার বিষয়টি দেখবে। আমি প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছি, তিনি আদালতের বিষয় বলেছেন। আদালতের জামিন বিষয়টা মূল। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আদালতে জামিন না হলে কীভাবে দেখব?

বিএনপি নেতা হারুনুর রশীদ নিজে এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। এ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ আমার সঙ্গে দেখা করে বলেছেন কয়েকদিন আগে বেগম জিয়াকে ঘিরে তাদের অভিপ্রায়ের কথা, জামিন পেলে তিনি বিদেশে যাবেন। তিনি নেত্রীকে (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) জানাতে বলেছেন। তিনিতো আন্তরিকভাবে বলেছেন, বেগম জিয়ারও ইচ্ছা থাকতে পারে।

বেগম জিয়ার সঙ্গে আলোচনা করেই আমার সঙ্গে আলোচনা করেছেন। হারুনুর রশীদ নিজেও এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন বলে জানান কাদের।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, প্রশ্ন হচ্ছে তিনি জামিন পাবেন কি-না সেটা আদালতের বিষয়। সরকার আদালতকে কীভাবে বলবে যে জামিন দিয়ে দেবেন? এটা কি বলা উচিত? তাহলে বিচার ব্যবস্থার প্রতি সরকারের হস্তক্ষেপ হবে। তিনি যদি জামিন পান এবং চিকিৎসকরা যদি মনে করেন তার বিদেশে গিয়ে চিকিৎসা করা দরকার, সেটা তারা বলতে পারেন। সে ধরনের কোনো রিপোর্ট পেলে, চিকিৎসকদের পরামর্শ থাকলে জানাতে পারেন। আদালতে জামিন দেওয়ার বিষয়ে সরকার বলতে পারে না। তবে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সরকারের কোনো শত্রুতা নেই বলে মন্তব্য করেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৮ই ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। ৭৪ বছর বয়সী খালেদাকে চিকিৎসার জন্য গত ১লা এপ্রিল থেকে রাখা হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেষ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Advertisement