নাট এলার্জিতে মৃত্যু : দু’ বাঙালী রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ী দোষি সাব্যস্ত

দোষি সাব্যস্ত দুই মালিক আব্দুল কুদ্দুস এবং হারুন রশীদ

টেইকওয়ের খাবার খেয়ে এলার্জিক রিয়েকশনে এক কিশোরীর মৃত্যুর দায়ে শুক্রবার ল্যাঙ্কাশায়ারের রয়েল স্পাইস টেইকওয়ের মালিক মোহাম্মদ আব্দুল কুদুদুস এবং হারুন রশীদকে দোষি সাব্যস্ত করেছে ম্যানচেস্টার ক্রাউন কোর্ট।

মেগান লি

আদালত জানিয়েছে, ২০১৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর ল্যাঙ্কাশায়ারের ১৫ বছর বয়সী মেগান লি এবং তার বান্ধবী জাস্ট ইটের মাধ্যমে রয়েল স্পাইস থেকে অনিয়ন ভাজী, শিক কাবাব এবং পেশোয়ারী নানের অর্ডার করেছিলো। অর্ডার দেওয়ার সময় ওয়েব সাইটে প্রাউন্স এবং নাটের বিষয়ে মেগানের বান্ধবী নোটও রেখেছিল। কিন্তু এই খাবার খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই মেগানের শরীরের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া শুরু হয়। তার ব্রেইন ডেমেজ হওয়ার দুদিন পর সে মৃত্যুবরণ করে।

ঘটনার পর রয়েল স্পাইস টেইকওয়েটি বন্ধ থাকলেও পরবর্তীতে নতুন মালিকানায় চালু হয়

আদালত জানিয়েছে, পেশোয়ারী নানের মধ্যে পিনাট মেশানো ছিল, যা খেয়ে মেগানের শরীরে প্রতিক্রিয়া শুরু হয় এবং পরবর্তীতে সে মৃত্যুবরণ করে। এরপর মেয়ের বাবার দায়ের করা মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে চরম অবহেলার কারণে কিশোরী মেগানের মৃত্যুর দায়ে ৪০ বছর বয়সী মোহাম্মদ আব্দুল কুদ্দুস এবং ৩৮ বছর বয়সী হারুন রশীদকে দোষি সাব্যস্ত করে আদালত। এছাড়াও হেলথ এন্ড সেইফটি এবং ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ফুড সেইফটি আইন ভঙ্গের আরো দুটি অভিযোগেও তাদেরকে দোষি সাব্যস্ত করে আদালত। আগামী সাত নভেম্বর তাদের সাজার মেয়াদ ঘোষণা করা হবে। তারা দুজনই বর্তমানে জামিনে মুক্ত রয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Advertisement