বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি রক্ষায় চর পোড়াগাছায় নেওয়া হচ্ছে বিশাল প্রকল্প : ভূমিসচিব

ব্রিট বাংলা ডেস্ক :: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিশেষ স্মৃতি বিজড়িত একটি স্থান লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চরম পোড়াগাছা ইউনিয়ন। সেই স্মৃতি রক্ষার্থে পোড়াগাছায় ভূমি মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে আধুনিক গুচ্ছগ্রাম প্রতিষ্ঠাসহ বিশাল প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী এ কথা জানান।

তিনি বলেন, চর পোড়াগাছায় ৪ একর জমিতে আধুনিক গুচ্ছগ্রাম প্রতিষ্ঠার কাজ চলছে। আগামী বছরের জুন-জুলাইয়ের মধ্যেই সেখানে ভূমিহীনদের পুনর্বাসন করা হবে। সম্প্রতি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে নিয়ে আমি ওই এলাকা পরিদর্শন করেছি।

ভূমি সচিব বলেন, ১৯৭৫ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চর পোড়াগাছায় মানুষের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা নেয়ার পর তিনি নিজে কোদাল দিয়ে মাটি কেটে গুচ্ছগ্রামের উদ্বোধন করেছিলেন। তার সেই স্মৃতি রক্ষায় সেখানে আধুনিক গুচ্ছগ্রাম প্রতষ্ঠার এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, একই বছরের ১৫ জানুয়ারি পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর ভাষণের গুরুত্বপূর্ণ অংশ সংরক্ষণ করে বাঁধাই করে বিভিন্ন দপ্তরে সরবরাহ করা হয়েয়েছ।

সচিব বলেন, চর পোড়াগাছায় গুচ্ছগ্রামের পাশাপাশি আধুনিক ভবন হবে। সেখানে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপন করা হবে। এ ছাড়া মার্কেট নির্মাণসহ একটি পর্যটন স্পট হিসেবে গড়ে তোলা হবে। সেখানে চার একর জমি চিহ্নিত করা হয়েছে। এই জমির অবস্থান ও প্রকল্পের বাস্তবায়ন অগ্রগতি নিয়ে ভূমিমন্ত্রীসহ স্থানীয় এমপি ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা জমিটি পরিদর্শন করেছেন। আশা করি বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতি আরো স্বাভাবিক হলেই ওই প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু করা যাবে। এ ছাড়া সারা দেশে আরো ৮ হাজার ৬৮৬ পরিবারকে গুচ্ছগ্রামের মাধ্যমে পুনর্বাসনের করা হবে।

ভূমি মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম সম্পর্কে সচিব মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমি সেবাবে মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়ার জন্য ব্যাপক উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমি মন্ত্রণালয় একটি শ্রমের ফসল।

তিনি বলেন, ভূমি ম্যানেজমেন্ট ই-মিউটেশনসহ ১৭ প্রকার সেবা প্রদানের কাজ করে থাকে। বর্তমানে এসব সেবা ম্যানুয়ালি করা হয়। এগুলোকে ডিজিটালাইজড করতে ১১শ‘ ২৭ কোটি টাকা ব্যায়ে ‘অটোমেশন অব ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট’ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। মুজিববর্ষ উপলক্ষে ৪ কোটি ৩ লাখ খতিয়ান (পরচা) অনলাইনে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বিশ্বের যেকোনো স্থান থেকে মানুষ এগুলো দেখতে পারবেন এবং তা আপলোড করতে পারবেন।

অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে ভূমি মন্ত্রণালয়ের কঠোর অবস্থানের কথা উল্লেখ করে ভূমি সচিব বলেন, আমি মানুষের তদবির শুনি কিন্তু সে অনুযায়ী কাজ করি না। কারণ যারা তদবির করেন তারা লজিক্যালি কথা বলেন, কিন্তু আইনে তা কভার করে না।

তিনি বলেন, মিউটেশন হালনাগাদের জন্য বছরে ২০ থেকে ২২ লাখ আবেদন জমা পড়ে। এসব আবেদন অনুযায়ী দ্রুততার সঙ্গে কাজ করতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। শতভাগ ই-মিউটেশন করা হয়েছে।

ভূমি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জ্ঞান বৃদ্ধির উদ্যোগ প্রসঙ্গে ভূমি সচিব বলেন, বছরে এক থেকে দেড় লাখ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে ট্রেনিং দেওয়া হয়। এসব ট্রেনিং শিডিউলে জাতির পিতাকে নিয়ে পড়াশোনার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এবং তার জীবন ও কর্ম সম্পর্কে সবার জানার সুযোগ হচ্ছে।

তিনি বলেন, ভূমি মন্ত্রণালয়ে বিভিন্ন বিষয়ে কয়েক হাজার মামলা আছে। দ্রুত গতিতে এসব মামলার নিষ্পত্তি করতে ‘সিভিল সুট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ চালু করা হচ্ছে। এতে মামলা সংক্রান্ত ডাটাবেজ থাকবে। মামলার তারিখ ও করণীয় সম্পর্কে উল্লেখ থাকবে ওই ডাটাবেজে।

সচিব বলেন, ১৯৮৩, ৮৭, ৯১, ২০০১ ও ২০০৩ সালে সারা দেশে ২৬টি উপজেলায় ভূমি জরিপ শুরু হয়েছিল, কিন্তু সেগুলো শেষ হয়নি। ওই জরিপ কার্যক্রম শেষ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া নিয়োগ-বিধিমালায় সংশোধন করা হচ্ছে। এটি আইন মন্ত্রণালয়ে ভেটিংয়ে গেছে। এটি চূড়ান্ত হলে প্রায় ১১ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ দেওয়া হবে।

মো. মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে আমাদের হৃদয়ে ধারণ করতে হবে। তার আদর্শে উজ্বীবিত হয়ে নির্মোহভাবে মানুষের সেবা করতে হবে।

Advertisement