লন্ডনে আইফোনের জন্যে বাঙালী চ্যারিটি ওয়ার্কার খুন : Charity worker stabbed death for his iPhone

ব্রিটবাংলা রিপোর্ট : মাত্র কয়েক ঘন্টার ব্যবধানের লন্ডনে আবারো ছুরিকাঘাতে দুই তরুনের প্রাণ গেল। এর মধ্যে একজন বাংলাদেশী অরিজিন। আই ফোন সেভেনের কারণে ছুরিকাঘাতে প্রান দিতে হয়েছে চ্যারিটি ওয়ার্কার ও বৃটিশ বাঙালী তরুন আব্দুল সামাদকে। তার বয়স ২৮ বছর। ড্রাগনহীল ট্রাস্ট নামে একটি চ্যারিটি সংস্থায় কাজ করতেন কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ আব্দুল সামাদ। তিনি পেডিংটনের লিটল ভেনিসে সেন্ট মেরিস টেরেসে বসবাস করতেন। যে বিল্ডিংয়ে তিনি বসবাস করতেন সেই বিল্ডিংয়ের সামনেই সোমবার রাত আনুমানিক ১১টা ৪৫ মিনিটের দিকে তাকে ছুরিকাঘাত করা হয়। এরপর রাত ১টার দিকে পেডিংটনের সেন্ট মেরি হাসপাতালে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন।  আব্দুল সামাদ ওয়েস্ট মিনস্টার ইউনিভার্সিটি থেকে অর্থনীতিতে গ্রাজুয়েট ছিলেন।

নিহত আব্দুল সামাদের ভাই আব্দুল আহাদ জানান, আব্দুল সামাদ তখন কাজ থেকে ফিরছিলেন। বিল্ডিংয়ের সামনে আসার পর হাতে থাকা আইফোন সেভেন টার্গেট করে একদল মোটরবাইক আরোহী ছিনতাইকারী তার উপর ছুরি দিয়ে হামলা করে। ছুরিকাহত সামাদ রক্তাক্ত হাতে নিজের ঘরে রিং বাজিয়ে সাহায্য চান। এ সময় তার মা-বাবা এসে রক্তাক্ত অবস্থায় ছেলেকে পান। এরপর পুলিশ এবং এম্বুলেন্স এসে তাকে সেন্ট মেরিস হাসপাতালে নিয়ে যায়। এই হাসপাতালেই আব্দুল সামাদ জন্মগ্রহন করেন। রাত প্রায় ১ টার দিকে হাসপাতালে মৃত্যুবরন করেন তিনি। তার বুকি ছুরিকাঘাত করা হয়েছিল।

শোকাহত আব্দুল আহাদ আরো জানান, একদল মোটরবাইক আরোহীকে দিনরাত তাদের বিল্ডিংয়ের সামনের রাস্তায় অকারনে মোটরবাইক চালাতে দেখা যায়। এই গ্রুপটি আব্দুল সামাদের হাত থেকে তার আইফোন সেভেন ছিনতাইয়ের চেস্টার তাকে ছুরিকাঘাত করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

আব্দুল সামাদকে হত্যার অভিযোগে কাউকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ। পুলিশ ঘটনার তদন্ত করছে।

এদিকে সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ওয়েস্ট লন্ডনের পারসন্সগ্রীন টিউব স্টেশনে অপর ছুরিকাঘাতের ঘটনায় ২০ বছরের আরেক তরুন খুন হন। বিস্তারিত পড়তে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করুন।

লন্ডনে টিউব স্টেশনে ছুরিকাঘাতে ১ জন নিহত : London Tube station stabbing: One dead

 

Charity worker stabbed death for his iPhone

The family of a young economics graduate murdered for his iPhone told today how they found him dying on his doorstep.

Charity worker Abdul Samad, 28, stumbled to the front door of his block and buzzed for help after he witnesses said he was attacked in the street for his mobile by thugs on a moped.

His devastated brother, Abdul Ahad, told how his parents rushed to help him as he lay fatally injured outside his home in Little Venice.

He was taken to St Mary’s Hospital in Paddington, where he was born, but died an hour later.

Mr Ahad told  Mr Samad worked for charity Dragon Hall Trust helping young Londoners develop their computer skills.

He said: “He loved helping children. That’s the sort of person he was. This is a young life gone and such a lovely life. He was full of energy and loved the kids he worked with.

“You’re not going to find a nicer person. It was over a phone, it’s just so senseless.

“He came to the door here and buzzed and was covered in blood. The knife went through his heart.

“He pressed the buzzer and my mum and dad came down and he was lying there on the floor. My mum then called me and said ‘you’re brother is dying’.

“When I got here he looked half dead already.”

He added: “My brother has never done anything wrong and never been in trouble with the police.

He told how the parents of Mr Samad, who studied economics at the University of Westminster, originally settled from Bangladesh in the 60s in search of a better life for their children.

He had been at a friend’s house playing computer games before leaving because he had work early today.

However, the family said witnesses saw Mr Samad being approached by youths on a moped outside his flat in St Mary’s Terrace, who tried to steal his iPhone 7.

It is thought he may have been stabbed during a struggle at about 11.45pm last night. He was pronounced dead in hospital just before 1am this morning.

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Advertisement