“লন্ডনে বিডিআর ট্র্যাজেডি অব বাংলাদেশ শীর্ষক সেমিনার

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ লন্ডনস্থ মানবাধিকার সংগঠন হোয়াইট পিজন ইন্টারন্যাশনাল”এর উদ্যোগে পূর্ব লন্ডনের ওসমানি সেন্টার -এ “বিডিআর ট্র্যাজেডি অব বাংলাদেশ রিফ্লেকশান অব জাষ্টিস “ শীর্ষক এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

সংগঠনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলা উদ্দিন ও সেক্টেটারী জেনারেল মো: আবু নাসের এর যৌথ পরিচালনায় এবং বিশিষ্ট মানবাধিকার আইনজীবি, নিউহ্যাম কাউন্সিল এর ডেপুটি স্পীকার ব্যারিষ্টার নাজির আহমদ এর সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির সাবেক উপদেষ্টা মোখলেছুর রহমান চৌধুরী, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সাংবাদিক বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতির প্রেস সেক্রেটারী শামছুল আলম লিটন এবং কমিনিউটি বাক্তিত্ত্ব নুর বকশ।
সেমিনার এ ”বিডিআর ট্র্যাজেডি অব বাংলাদেশ ২০০৯” সম্পর্কিত মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংগঠনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলা উদ্দিন।
সেমিনার এ বক্তারা বলেন ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ বাংলাদেশ ও বিশ্বের ইতিহাসে একটি শোকাবহ দিন । এদিন ঢাকার পিলখানায় বিডিআর বিদ্রোহের নামে ৫৭ সেনা কর্মকর্তা ও তৎকালীন বিডিআর ডিজির স্ত্রীসহ আরও ১৭ জন বেসামরিক মিলিয়ে মোট ৭৪ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

এছাড়াও বিচার কালীন সময়ে আরও প্রায় ২৮ জন এর মৃত্যু নিয়েও জনমনে প্রশ্ন রয়ে গেছে, এসকল মৃত্যুতে মানবাধিকার সংগঠনগুলো গভীর উদ্ভেগ প্রকাশ করেছে বলেও বক্তারা বলেন।
সেমিনারে আলোচক বৃন্দ পিলখানার বিডিআর বিদ্রোহকে হত্যাকাণ্ড বলে অভিহিত করে আবেগ আপ্লূত সৃতিচারণ করেন, এবং নির্মম এ হত্যাকাণ্ডকে কোনভাবেই বিদ্রোহ বলা যায় না বরং তা ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের অতন্দ্র প্রহরী বাংলাদেশ সেনাবাহিনী তথা বাংলাদেশের বিরুধে গভীর ষড়যন্ত্র বলে মনে করেন।

এ হ্ত্যাকান্ড নিয়ে অনেকগুলো তদন্ত কমিটি করা হলেও কোনটিরও আজ পর্যন্ত পূর্নাঙ্গ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়নি বলে বক্তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং প্রকৃত ষড়যন্ত্রকারীরা চিন্হিত হয়নি বলে মন্তব্য করেন।

সেমিনারে আরও বক্তব্য রাখেন সংগঠনের ভাইস চেয়ারম্যান মনিরুল হক, শাকিল মিনহাজ এবং শোয়েবুর রহমান, অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারী আব্দুল হাফিজ, ট্রেজারার মোহাম্মদ মাজহারুল ইসলাম ভূঁইয়া, এক্সিকিউটিভ মেম্বার আবদুস সালাম, তরিকুল ইসলাম, আলী শাহজাদা, ফাহাদ ইবনে ইকবাল, মোহাম্মেদ মাসুদুল হাসান, রায়হান চৌধুরী,সাবেক ছাত্র নেতা ইউসুফ আলী, মিডিয়া বাক্তিত্ব ওমর ফারুক, আশিকুল ইসলাম প্রমুখ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Advertisement