লেবারপার্টিতে ডেপুটি লিডারের পদ নিয়ে দ্বন্দ্ব

ব্রিটবাংলা ডেস্ক : সমুদ্রতীরবর্তী শহর ব্রাইটনে শনিবার থেকে লেবারপার্টির কনফারেন্স শুরু হয়েছে। চলবে বুধবার পর্যন্ত। কিন্তু কনফারেন্সের প্রথম দিনেই ডেপুুটি লিডারের পদ নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়। ডেপুটি লিডারের পদ খারিজের প্রস্তাবটি আনতে চেয়েছিল দলের বামন্থী গ্রুপ- মোমেন্টাম। যদিও শেষ মুহুর্তে প্রস্তাবটি উত্থাপনের সুযোগ না দিয়ে বরং বিষয়টি নিয়ে রিভিউর ঘোষণা দিয়েছেন লেবার লিডার জেরেমি করবিন।

দলের বিপুল সংখ্যক এমপি এই প্রস্তাবের বিরোধীতা করে বলেছেন, এর মাধ্যমে অভ্যন্তরিন কোন্দল আরো বাড়বে। এদিকে ডেপুটি লিডার টম ওয়াটসন বলেছেন, বিষয়টি অত্যন্ত হতাশাজনক। দলের কট্টর বাপমন্থীরা এটা করছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। টম ওয়াটসন বলেন, এই পুরো সপ্তাহটি সরকারের বিরুদ্ধে লেবারের নীতি নির্ধারণ নিয়ে আলোচনা হওয়ার কথা। কিন্তু কনফারেন্সের শুরুতেই একটি বির্তক এসে ধাক্কা দিল।

ব্রেক্সিট ইস্যুতে লেবার লিডার জেরেমি করবিনের নীতির বিরোধীতা করেই ডেপুটি লিডার টম ওয়াটসন রোষানলে পড়েছেন। ইউনাইট ইউনিয়নের লিডার ল্যান ম্যাকক্লাস্কি। তিনি বলেন, সব ডেপুটি লিডারের উচিত লিডারের নীতির প্রতি সমর্থন করা।

এদিকে লেবার পার্টির ন্যাশনাল এক্সিকিউটিভ কমিটি ব্রেক্সিটের জন্যে কিছু প্রস্তাবনাও তৈরি করেছে, যা কনফারেন্সে পাশ করা হবে। ক্ষমতায় গেলে প্রথম তিন মাসে লেবার ব্রেক্সিটের জন্যে নতুন চুক্তি করবে। পরবর্তীতে ছয় মাসের মধ্যে এই চুক্তির উপর রেফারেন্ডাম করবেন। তবে ব্যালট পেপারে দ্বিতীয় অপশন হিসেবে রিমেইনও রাখবে লেবার। আর মাধ্যমে ব্রেক্সিট নিয়ে লিভ না রিমেইন এই বিতর্কে থেকেই যাবে লেবার পার্টি। দলের এমপি স্যার কাইর স্টারমার এবং এমিলি থর্নবারি শনিবার ব্রাইটনে রিমেইনের পক্ষে পিপলস ভোটের একটি র‌্যালিতে অংশ নিয়েছেন।

ব্রেক্সিট ইস্যুতে দলের শীর্ষ নেতৃত্বে দ্বিমত নিয়ে লেবার পার্টি সাধারণ নির্বাচনে গেলে পাল্টা কনজারভেটিভ পার্টি বা বরিস জনসনই লাভবান হবেন বলেও মনে করছে লেবারের সাধারণ সদস্যরা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Advertisement