প্রথমবারের মত একে অপরের মোকাবেলা করতে যাচ্ছে সুইজারল্যান্ড-ক্যামেরুন

আগামীকাল বৃহস্পতিবার গ্রুপ-জি’র সম্ভবত সবচেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ ম্যাচে একে অপরের মোকাবেলা করতে যাচ্ছে সুইজারল্যান্ড ও আফ্রিকার সিংহ হিসেবে খ্যাত ক্যামেরুন। এর আগে কখনই একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে পায়নি এই দুটি দল। যে কারণে শক্তিমত্তায় কে কার থেকে পিছিয়ে বা এগিয়ে তার পরিসংখ্যানও এখনো লেখা হয়নি। প্রথম দেখায় দুই দল মাঠে নামবে বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টায়।এই গ্রুপের অপর দুই দল সার্বিয়া ও টুর্নামেন্ট ফেবারিট ব্রাজিল। বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর দল ও শক্তিমত্তার বিচারে গ্রপের শীর্ষ দল হিসেবে ব্রাজিলের নাম থাকলেও পরের রাউন্ডে যাবার জন্য সুইজারল্যান্ড, ক্যামেরুন ও সার্বিয়ার মধ্যে লড়াইটা বেশ জমে উঠবে বলেই সকলে আশাবাদী। ইউরো ২০২০’এ কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার সুখস্মৃতি নিয়ে সুইসরা বিশ^কাপে খেলতে এসেছে। অন্যদিকে আফ্রিকান নেশন্স কাপে ক্যামেরুন তৃতীয় স্থান লাভ করেছিল। টানা চারটি আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে সুইসদের টাচ লাইনে থাকা অভিজ্ঞ কোচ ভøাদিমির পেটকোভিচ এবার আর থাকছেন না। তার স্থানে প্রথমবারের মত বিশ^কাপে মুরাট ইয়াকিনের অধীনে খেলতে নামবে সুইজারল্যান্ড।

২০২১ সালের আগস্টে জাতীয় দলের দায়িত্ব নেবার পর ইয়াকিনের অধীনে সুইজারল্যান্ড দারুন এক বিশ^কাপ বাছাইপর্ব কাটিয়েছে। ইতালিকে পিছনে ফেলে সম্ভাব্য ২৪ পয়েন্টের মধ্যে ১৮ পয়েন্ট অর্জন করে গ্রুপ-সি’র শীর্ষস্থান অর্জন করে সুইসরা। এছাড়া নেশন্স লিগে লিগ-এ’তে জায়গা ধরে রেখেছে। টানা তিনটি ম্যাচে পরাজিত হবার পর একে একে পর্তুগাল, স্পেন ও চেক রিপাবলিককে হারিয়ে তারা লড়াইয়ে ফিরে আসে। যদিও বিশ^কাপের শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে ঘানার কাছে তারা ২-০ গোলে হেরে গেছে। কিন্তু তারপরও সুইসরা টানা চতুর্থবারের মত বিশ^কাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলতে এসে দারুন আত্মবিশ^াসী মনোভাব পোষন করেছে। দলীয় স্ট্রাইকার ব্রিল এম্বোলো ও অধিনায়ক গানিথ জাকা রয়েছেন দুর্দান্ত ফর্মে। যাদের সাম্প্রতিক ফর্ম পুরো দলকে আরো বেশী উজ্জীবিত করে তুলেছে।অণ্যদিকে আফ্রিকান সিংহ হিসেবে খ্যাত ক্যামেরুন আফ্রিকান নেশন্স কাপের পর থেকে নিজেদের মেলে ধরতে ব্যর্থ হয়েছে। শেষ পাঁচটি ম্যাচের মাত্র একটিতে তারা জয়ী হয়েছে। একমাত্র জয়টিও এসেছিল র‌্যাঙ্কিংয়ের ১৪১তম দেশ বুরুন্ডির বিপক্ষে। রবার্ট সংয়ের দল দারুন এক নাটকীয়তা শেষে কাতারের টিকিট পায়। মার্চে অতিরিক্ত সময়ে কার্ল টোকো একাম্বির গোলে পরাজিত করে আলজেরিয়াকে বিদায় করে বিশ^কাপে চূড়ান্ত পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে ক্যামেরুন। অদম্য সিংহরা এবারের টুর্নামেন্টে নীচু সারির র‌্যাঙ্কিংয়ের দলগুলোর মধ্যে চতুর্থ। সুইস প্রতিপক্ষর বিপরীতে তারা ২৮ ধাপ পিছনে রয়েছে।যদিও আক্রমনভাগে টোকো একাম্বি, এরিক ম্যাক্সিম চুপো-মোটিংয়ের মত ফর্মে থাকা খেলোয়াড়দের নিয়ে অনুপ্রেরণা পেতেই পারে ক্যামেরুন। চুপো-মোটিং শেষ ১০টি ম্যাচে ১১ গোল করেছেন ও তিনটি এ্যাসিস্ট করেছেন। পাঁচবারের আফ্রিকান চ্যাম্পিয়নরা এখন নিজেদের উপর আত্মবিশ^াস রেখে এগিয়ে যেতে পারলে সব কিছুই সম্ভব।

বরুসিয়া মনচেনগ্ল্যাডবাখের অভিজ্ঞ গোলরক্ষক ইয়ান সোমার অক্টোবরে গোঁড়ালির ইনজুরিতে পড়েছিলেন। যদিও গত সপ্তাহে ঘানার বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে সুইসদের গোলবার সামলানোর দায়িত্ব তার উপরেই ছিল। পুরোপুরি ফিট না হলেও তার উপরই হয়তো মূল একাদশে আস্থা রাখবেন ইয়াকিন। প্রিমিয়ার লিগের তারকা ম্যানুয়েল আকাঞ্জি, ফাবিয়ান শার, রেমো ফ্রুয়েলার ও ডেনিস জাকারিয়া বিশ^কাপে মাঠে নামতে মুখিয়ে আছে। মধ্যমাঠে ১০৯ ম্যাচ খেলা অভিজ্ঞ জিহার্দান শাকিরিতো রয়েছেনই।ক্যামেরুন দলে অবশ্য কোন ধরনের ইনজুরি শঙ্কা নেই। পুরো ফিট একটি দল নিয়েই তারা কাতারের মাটিতে পা রেখেছে। ব্রেন্টফোর্ডের ফরোয়ার্ড ব্রায়ান এমবুয়েমোকে হয়তোবা চুপো-মোটিং ও একাম্বিও সঙ্গী হিসেবে মূল দলে দেখা যেতে পারে। মধ্যমাঠে দলের পুরো ভার একাই কাঁধে নিয়ে নিয়েছেন নাপোলি মিডফিল্ডার আন্দ্রে-ফ্রাংক জাম্বো আনগুইসা। গোলরক্ষক হিসেবে বরাবরের মতই দলকে পুরোপুরি আগলে রাখতে চান ইন্টার মিলান গোলরক্ষক আন্দ্রে ওনানা।

Advertisement