১৫ জুলাই আসছেন খালেদা জিয়া, আসতে পারে যুক্তরাজ্য বিএনপির নতুন কমিটি

আ স ম মাসুম : আগামী ১৫ জুলাই লন্ডনে আসছেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। খালেদা জিয়ার সফরসঙ্গী হয়ে লন্ডন আসছেন দলের স্থায়ী কমিটির এক সদস্য, এক ভাইস চেয়ারম্যান, নির্বাহী কমিটির এক তরুণ নেতা। সাবেক এক ছাত্রনেতাও থাকতে পারেন। এমনটি জানিয়েছে কয়েকটি নির্ভরযোগ্য সূত্র। এতে বোঝা যাচ্ছে, দলের অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হবে এখানে। এমনটাই জানিয়েছেন যুক্তরাজ্য বিএনপির একজন শীর্ষ পর্যায়ের নেতা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সেই নেতা আরো জানান, এই সফর ঈদুল আজহা পর্যন্ত দীর্ঘ হবে। সফরের মূল উদ্দেশ্য চিকিতসা ও দুই ছেলের পরিবারের সাথে ঈদ করার কথা বলা হলেও মূলত এখান থেকেই সরকার পতন আন্দোলনের একটি রূপরেখা তৈরি হবে।

এছাড়াও এই সফরের মধ্যেই যুক্তরাজ্য বিএনপির নতুন কমিটি আসতে পারে। নতুন কমিটিতে নেতৃত্বের পরিবর্তন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও জানিয়েছেন সেই নেতা। নতুন কমিটিতে মূলত আন্তর্জাতিক লবিং স্পেলালিষ্টদের নেতৃত্ব আসতে পারে।

জানা গেছে, সার্বিক বিষয়ের ওপর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও তথ্যাদি ইতিমধ্যেই লন্ডনে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। সঙ্গে নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখার একটি কপিও রয়েছে।

অবশ্য এ সফরে পা ও চোখের চিকিৎসা করানো খালেদা জিয়ার অন্যতম উদ্দেশ্য। বেশ কিছুদিন ধরে তার পায়ের সমস্যা কিছুটা বেড়েছে বলে জানা গেছে। এর আগে চোখের অপারেশন করিয়েছিলেন লন্ডনে। চোখের ফলোআপ চিকিৎসা করতে যাওয়ার কথা ছিল আরও আগে।

একটি সূত্র বলছে, এবারের সফরের পর আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগে খালেদা জিয়ার লন্ডন আসার সম্ভাবনা নেই। তাই তারেক রহমানের সাথে এটাই খালেদা জিয়ার নির্বাচনপূর্ব সর্বশেষ বৈঠক হিসাবে ধরেই সকল পরিকল্পনা করা হচ্ছে। তাই আন্দোলন, জাতীয় নির্বাচন, স্থায়ী কমিটির শূন্যপদ পূরণ, জাতীয় নির্বাহী কমিটির গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি পদে পদায়ন, গুরুত্বপূর্ণ জেলা কমিটি গঠনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে তারেক রহমানের সঙ্গে আলোচনা করবেন বেগম জিয়া। সেখানে তার সঙ্গে সফরসঙ্গী নেতারাও থাকবেন। আগামী জাতীয় নির্বাচন এবং এ ব্যাপারে পার্শ¦বর্তী দেশ ভারতসহ পশ্চিমারা কী মনে করছেন, তাদের চাওয়া কী আলোচনায় এসব বিষয় গুরুত্ব পাবে বেশি। চলতি বছরের শেষে আন্দোলনের যে চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে তার যৌক্তিতা নিয়েও বিশেষ কথা হতে পারে। এ ছাড়া কিছু স্পর্শকাতর আসনে মনোনয়নের ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত হতে পারে। মোদ্দা কথা, আগামীতে বিএনপির আন্দোলন ও নির্বাচনী কৌশল কী হবে তা চূড়ান্ত হতে পারে এ সফরে।লন্ডন সফর শেষ করে নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা দেবেন বেগম জিয়া। রূপরেখা কী হবে তা নিয়েও সেখানে আলোচনা হবে।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Advertisement