যুক্তরাজ্য

সারা জাগানো এআরটিএ এওয়ার্ড অনুষ্ঠিত : কারী শিল্পের ভবিষ্যত নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করলেন স্যার ভিন্স কেবল

ডক্টর সিরাজ আলীর হাতে এআরটিএ লাইফটাইম এ্যাচিভম্যান্ট এওয়ার্ড তুলে দিচ্ছেন স্যার ভিন্স কেবল। সঙ্গে আছেন মুলধারার দুই অনুষ্ঠান পরিচালক এবং এআরটিএ’র স্বপ্নদ্রষ্টা এম এ মুনিম সালিক

ব্রিটবাংলা রিপোর্ট : প্রবীন ব্রিটিশ রাজনীতিক, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির লীডার প্রবীন রাজনীতিক স্যার ভিন্স কেবল ব্রেক্সিট পরবর্তী কারী শিল্পের ভবিষ্যত নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ব্রিটিশদের খাদ্যাভাস বদলে দেয়া এশিয়ান কারী আজ স্টাফ সংকটসহ বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন। ব্রেক্সিট কার্যকর হলে ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের বাইরে থেকে স্টাফ যোগানের আশ্বাস যে অসার ছিলো এটিতো এখন দিবালোকের মত সত্য। ৩০ সেপ্টেম্বর রবিবার এশিয়াান রেষ্টুরেন্ট এন্ড টেইকওয়ে এওয়ার্ডেও (ARTA , আরটা) অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতি হিসাবে বক্তব্য দিতে গিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

চ্যাম্পিয়ান অব দ্য চ্যাম্পিয়ান এওয়ার্ড পায় ক্যাম্ব্রিজের কারী প্যালেস। এর ডিরেক্টর খসরু মিয়া ৫০হাজার মূল্যে গোল্ড এন্ড সিলভার এওয়ার্ড পেয়ে অভিভূত

‘ব্রেক্সিট বেদনাদায়ক ও ব্যয়বহুল’ এমন মন্তব্য করে স্যার ভিন্স কেবল আশা প্রকাশ করে বলেন, ব্রিটিশ কারী মাল্টিকালচারালের ব্রিটিশ নাগরিকদের এক টেবিলে বসায়, ব্রেক্সিট সংকট মোকাবেলায় রাজনীতিকদেরও এভাবে ‘ওয়ান নেশন’ চেতনায় উদ্বুদ্ধ করুক এই শিল্প।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আরটিএ’র স্বপ্নদ্রষ্টা এম এ মুনিম সালিক

এটি ছিলো এশিয়াান রেষ্টুরেন্ট এন্ড টেইকওয়ে এওয়ার্ডের (ARTA , আরটা)এর প্রথম অনুষ্ঠান। ব্রিটেনের বিভিন্ন অঞ্চলের কাষ্টমার স্বীকৃত সফল এশিয়ান রেষ্টুরেন্ট গুলো থেকে অঞ্চল ভিত্তিক বাছাইকৃত রেষ্টুরেন্ট গুলোকে এওয়ার্ড প্রদানের মাধ্যমে ওটু ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে রবিবার, ৩০শে সেপ্টেম্বর রাতে অনুষ্ঠিত হয় ‘আরটা’র এই প্রথম এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠান।


জমকালো অনুষ্ঠানে ছিলো অসাধারণ সব পারফরম্যান্স, ছিলো মন মাতানো বিনোদন। বিজয়ীদের উচ্ছাসের পাশাপাশি ছিলো কারী শিল্পের সংকট নিরসনে জোরালো দাবি। নাচ-গানে ভরপুর অনুষ্ঠানে আগতদের মুখে বার বার উঠে আসে একটি পরিশ্রমী জনগোষ্ঠীর দীর্ঘ সংগ্রামের ফসল আজকের সমৃদ্ধ কারী শিল্পের কথা।

‘আরটা’ নাইটে উপস্থিত ছিলেন বলিউড ম্যালডি কুইন আলকা ইয়াকগনিক

অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন এমপি, জাতীয় রাজনীতিক, সাংবাদিক, সেলিব্রেটিসহ ব্রিটিশ সোসাইটির উচ্চ পর্যায়ের ব্যাক্তিরা,ছিলেন সারা দেশ থেকে আগত রেষ্টুরেন্ট ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত ব্যাবসায়ীরা।

 

ব্রিটেনের বিভিন্ন অঞ্চলের ১৪টি রেস্টুরেন্টকে রিজওনাল উইনার এওয়ার্ডস প্রদান করা হয়। কাষ্টমারদের ভোটাভোটি ও জাজদের বিচারে বিচারেরর স্বীকৃতি হিসেবে এই এওয়ার্ড ছাড়াও বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ৭টি ন্যাশনাল এওয়ার্ড ছিলো

অঞ্চল ভিত্তিক সফল রেষ্টুরেন্টগুলোকে স্বীকৃতি দেয়ার পাশাপাশি ৫০ হাজার পাউন্ড মূল্যমানের সেরাদের সেরা এচিভমেন্ট এওয়ার্ডও প্রদান করা হয় এই ‘আরটা’ নাইটে। এই এচিভম্যান্ট এওয়ার্ড লাভ করেন এসেক্স ‘দ্যা মহারাজা’ রেষ্টুরেন্টের স্বত্বাধিকারী বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত মোহাম্মদ সিরাজ আলী। তাঁর হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন প্রবীন ব্রিটিশ রাজনীতিক, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির লীডার স্যার ভিন্স কেবল।

নমিনেশন বা ভোট প্রদানকারী কাস্টমারদের মধ্যে থেকে লটারী করে ইপসামের কাস্টমার আলেকজান্ডার নোরিসকে ব্র্যান্ড নিউ কার পুরস্কার দেয়া হয়

মূলধারার টিভি প্রেজেন্টার, সেলিব্রেটি শেফ এইনস্লি হ্যারিয়ট এবং বিবিসি ওডার্ল্ড সংবাদ পাঠিকা সামান্থা সিমন্ডস এর প্রানবন্ত উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত জমকালো এই ‘আরটা’ নাইটে উপস্থিত ছিলেন বলিউড ম্যালডি কুইন আলকা ইয়াগনিকসহ খ্যাতিমান পারফরমাররা। অনুষ্ঠানের শুরুতেই বক্তব্য রাখেন ‘আরটা’ ফাউন্ডার এন্ড সিইও মোহাম্মদ মুনিম সালিক। অতিথিদের স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, এশিয়ান কারি শিল্প যে ব্রিটিশ বিজনেস সেক্টরের অন্যতম মহীরুহ, এই সেক্টরটি যে ব্রিটিশদের হাউজহোল্ড ব্রান্ড, সেটি জানান দিতেই আজকের এ ‘আরটা’ নাইট। সকলের সহযোগিতায় ‘আরটা’র যে যাত্রা শুরু হলো এটি আমরা নিয়ে যেতে চাই প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে। সচরাচর নয়, ব্যতিক্রম হতে চায় ‘আরটা’। পূর্ব প্রজন্মের রেখে যাওয়া এই শিল্পে বর্তমান প্রজন্মের মেধা সম্পৃক্তি ঘটাতে চায় এই প্লাটফর্ম। তিনি বলেন, সারা দেশের সফল রেষ্টুরেন্টগুলো বাছাইয়ে মূল ভূমিকা রেখেছেন এই সেক্টরের প্রাণ খ্যাত কাস্টমাররা। নিজের প্রিয় রেষ্টুরেন্টটিকে সফলতার তালিকায় দেখতে চাওয়ার কাস্টমারদের এই যে স্বপ্ন এটিই হলো কারী শিল্পের মূল শক্তি। এই শক্তিকে সাথে নিয়েই সব প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করতে চায় ‘আরটা’।

Related Articles

Back to top button