শক্তিশালী পাসওয়ার্ডের ৮ টিপস

ব্রিট বাংলা ডেস্ক :: সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অনলাইনে মানুষের কর্মব্যস্ততা অনেক বেড়ে গেছে। আর অনলাইনে নানান কাজের জন্য প্রচুর সাইটে নিবন্ধন করতে হয়। এই নিবন্ধনের সময় অনেক অ্যাকাউন্টের জন্যই ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড তৈরি করতে হয়। এসব পাসওয়ার্ড শক্তিশালী না হলে তা সহজেই হ্যাক হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। পাসওয়ার্ড শক্তিশালী করার ৮টি গুরুত্বপূর্ণ টিপস তুলে ধরা হলো এই লেখায়।

প্রতিটি সাইটের জন্য আলাদা আলাদা পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন। অনেকেই মনে রাখার সুবিধার জন্য বিভিন্ন অ্যাকাউন্টে একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে থাকেন। এতে করে একটি অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড জানতে পারলে ওই ব্যক্তির সব অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ডই জানা হয়ে যায়, যা নিরাপত্তার জন্য হুমকির বিষয়। তাই নিজে মনে রাখতে পারেন এমন ভিন্ন ভিন্ন পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন প্রতিটি অ্যাকাউন্টের জন্য।

অ্যাকাউন্টের সাথে সংশ্লিষ্ট পাসওয়ার্ড যথাসম্ভব বর্জন করুন। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, অনেকেই ইয়াহু মেইলের পাসওয়ার্ডে ইয়াহু শব্দটি ব্যবহার করে থাকেন। এ ধরনের পাসওয়ার্ড সহজেই হ্যাকাররা ভাঙতে পারে। ফলে যে সাইটে আপনার অ্যাকাউন্ট, সেই সাইট সংশ্লিষ্ট শব্দ পাসওয়ার্ডে ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।

অক্ষরেই সীমাবদ্ধ থাকবেন না। পাসওয়ার্ডের ক্ষেত্রে অক্ষরের সাথে সাথে বিভিন্ন ধরনের সংখ্যা এবং বিশেষ ক্যারেক্টার (যেমন, হ্যাশ, স্টার এবং অন্যান্য চিহ্ন) ব্যবহার করুন। এতে করে আপনার পাসওয়ার্ড সাধারণ পাসওয়ার্ডের তুলনায় অনেক শক্তিশালী হয়ে উঠবে। এ ক্ষেত্রে সাধারণ অক্ষরের আগে-পরে বা মাঝামাঝি কোনো জায়গায় বিশেষ ক্যারেক্টারগুলো ঢুকিয়ে দিন।

পাসওয়ার্ডের অক্ষরে ছোট ও বড় হাতের অক্ষর ব্যবহার করুন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আমরা পাসওয়ার্ডের ক্ষেত্রে কেবল ছোট হাতের অক্ষরগুলোই ব্যবহার করে থাকি। এ ক্ষেত্রে যদি আপনি ছোট হাতের অক্ষরের সাথে সাথে কিছু স্থানে বড় হাতের অক্ষর ব্যবহার করেন, সেটা আপনার পাসওয়ার্ডকে অনেক বেশি শক্তিশালী করে তুলবে। বড় ও ছোট হাতের অক্ষরের এমন সমন্বয় ভাঙা হ্যাকারদের জন্য কষ্টসাধ্য।

অক্ষরের পাশাপাশি সংখ্যা ব্যবহার করুন। শুধু অক্ষরের পাসওয়ার্ডের তুলনায় এর সাথে সংখ্যার ব্যবহার পাসওয়ার্ডকে অনেকটাই শক্তিশালী করে তুলবে। তবে সংখ্যা ব্যবহার করতে গিয়ে আবার জন্মদিন বা এমন পরিচিত কোনো সংখ্যা ব্যবহার করবেন না। এগুলো অনুমান করা যেমন সহজ, তেমনি পাসওয়ার্ড ভাঙতে গিয়ে অ্যালগরিদমগুলো এগুলোকেই প্রথম পরীক্ষা করে।

পরিচিত নামগুলো ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। অনেকেই পাসওয়ার্ডে নিজের নাম বা পরিচিত কাছের মানুষদের নাম ব্যবহার করে থাকেন। আপনার পরিচিত কেউ আপনার পাসওয়ার্ড জানতে চাইলে প্রথমে সেই পরিচিত নামগুলো দিয়েই চেষ্টা করবে। কাজেই পরিচিত নামগুলো যথাসম্ভব ব্যবহার করবেন না। নামের পাশাপাশি আপনার পছন্দের বিভিন্ন শব্দ, বিভিন্ন ডিভাইস এবং মোবাইল নম্বর বর্জন করুন। পোষা প্রাণী, নিকটাত্মীয় বা বন্ধু-বান্ধবের নামও এড়িয়ে চলুন যথাসম্ভব।

পরিচিত প্যাটার্নগুলো পাসওয়ার্ড হিসেবে ব্যবহার করবেন না। কোনো শব্দ ব্যবহার করতে চাইলে প্রয়োজনে শব্দটিকে উল্টিয়ে ব্যবহার করুন। আবার শব্দটিকে দুই ভাগে ভেঙে মাঝে কোনো সংখ্যা যোগ করে দিন। এতে করে পাসওয়ার্ডের শক্তি বেড়ে যাবে। আবার শুরুতে কিছু সংখ্যা, মাঝে উল্টিয়ে দেওয়া কোনো শব্দ, শেষে বিশেষ কোনো ক্যারেক্টার ব্যবহার করেও শক্তিশালী করে তুলতে পারেন আপনার পাসওয়ার্ড।

বড় বড় পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন। ছোট পাসওয়ার্ডগুলো সহজেই ভাঙতে পারে হ্যাকাররা। পাসওয়ার্ড যত বড় হবে, সেগুলো ভাঙা তত কঠিন। কাজেই যতসম্ভব বড় বড় পাসওয়ার্ড তৈরি করুন, আর নিশ্চিন্ত থাকুন পাসওয়ার্ড সুরক্ষার বিষয়ে।

এসব টিপস নিঃসন্দেহে শক্তিশালী পাসওয়ার্ড তৈরি করতে সহায়তা করবে আপনাকে। পাশাপাশি আপনার পাসওয়ার্ডের সুরক্ষায় ব্যবহার করতে পারেন বিভিন্ন পাসওয়ার্ড ম্যানেজার। পাসওয়ার্ড ম্যানেজার আপনার পাসওয়ার্ড মনে রাখার ঝামেলা থেকেও মুক্ত রাখবে। আর নিয়মিত পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করুন। তাহলে আর পাসওয়ার্ড হ্যাক হওয়ার ভয় অনেকটাই কমে যাবে।

Leave a Reply

Developed by: TechLoge

x